,

দিল্লিতে লিঙ্গ পরিবর্তনের হিড়িক

লিঙ্গ পরিবর্তনের ঘটনা দিল্লিতে বাড়ছে। হাসপাতালে অপারেশন করিয়ে কোনো নারী হয়ে যাচ্ছেন পুরুষ। আবার কোনো পুরুষ হয়ে যাচ্ছেন নারী। এদের সংখ্যা আগের চেয়ে  বেড়েছে অনেক। সংশ্লিষ্ট একজন চিকিৎসক বলেছেন, আগে বছরে এমন অপারেশন করাতেন দু’একজন। এখন প্রতি মাসেই তিন থেকে চারজন এমন অপারেশন করান। এ খবর দিয়েছে অনলাইন টাইমস অব ইন্ডিয়া। এতে বলা হয়েছে, সংশ্লিষ্ট সাংবাদিক দিল্লির কেন্দ্রীয় অঞ্চলে অবস্থিত লোক নায়েক হাসপাতালে গিয়ে দেখতে পান, এমন অপারেশন করানোর জন্য অপেক্ষমাণ ছিলেন ৫ জন। তারা লিঙ্গ পরিবর্তন করে বিপরীত লিঙ্গে পরিণত হতে চান। এমন প্রবণতা বাড়ছেই। অপেক্ষারত ওই ৫ জনের মধ্যে ছিলেন দু’জন প্রকৌশলী ও একজন মেডিকেল পড়ুয়া। হাসপাতালটির প্লাস্টিক সার্জারি বিভাগের প্রধান ডাক্তার পিএস ভাণ্ডারি। তিনি বলেছেন, প্রকৌশলী ও মেডিকেল পড়ুয়ারা লিঙ্গ পরিবর্তন করাতে আসছেন এতে বিস্ময়ের কিছু নেই। বেশির ভাগই আসছেন মধ্যবিত্ত পরিবারের যুবক বা যুবতী। মানসিক রোগ বিষয়ক পরামর্শক ডাক্তার রাজিব মেহতা বলেছেন, ১০ বছর আগে বছরে আমরা এমন ঘটনা বা রোগী পেতাম একটা বা দুটো। কিন্তু এখন প্রতি বছরে তিন থেকে চারজন এমন রোগী পাচ্ছি। সম্প্রতি এমন একজন যুবতীকে প্রাথমিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হয়েছে। তার নাম ইলা (পরিবর্তিত নাম)। নয়ডার ২৭ বছর বয়সী যুবতী তিনি। তিনি জন্মেছেন একজন নারী হয়ে। কিন্তু নারীদের মতো পোশাক পরতে তার ভালো লাগে না। মেয়েরা যেভাবে ফ্রক পরে, পুতুল নিয়ে খেলা করে তা তার পছন্দ নয়। ইলা বলেছেন, যখন আমাকে এসব জোর করে পরানো হতো তখন ফ্রকের সঙ্গেই যেন যুদ্ধ করতাম। এসব মেনে নিতে পারতেন না বাবা-মা। তারা মনে করতেন আমি এসব করছি ইচ্ছা করে। এ নিয়ে বাবা মা’র সঙ্গে সারাক্ষণই ঝগড়া হতো। এতে বিষণ্নতায় ভুগতে থাকি আমি। এখন থেকে তিন বছর আগে এক পর্যায়ে আমি অতিরিক্ত ঘুমের বড়ি খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করি। তখন বাবা-মা দ্রুত আমাকে নিয়ে যান স্যার গঙ্গারাম হাসপাতালে। সেখানে আস্তে আস্তে সুস্থ করে তোলা হয় আমাকে। ডাক্তাররা বলেন প্রচণ্ড উদ্বেগ, বিষণ্নতা, মাদক ও নিকোটিনের ওপর নির্ভর হয়ে পড়েছি আমি।
ওই সময়ে ইলা দিনে অর্ধেক বোতলের বেশি হুইস্কি এবং কমপক্ষে ২০টি সিগারেট পান করতেন। ইলা বলেন, আমার মনে হতে থাকে আমার নারী দেহের ভিতর একটি ছেলে বাসা বেঁধেছে। এ অবস্থায় ডাক্তাররা তাকে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করেন। তাতে দেখা যায় তিনি জেন্ডার আইডেনটিটি ডিজঅর্ডারে (জিআইডি) ভুগছেন। এটা হলো একজন মানুষের শারীরিক লিঙ্গগত পরিচয় ও তার ভিতরে নারী বা পুরুষ হিসেবে নিজেকে প্রকাশের ক্ষেত্রে সংঘাতময় অবস্থা। একপর্যায়ে ইলার মা তাকে অনুমতি দেন। তার ওপর প্রয়োগ করা হয় বিষণ্নতারোধী ওষুধ। তাকে একজন পুরুষের মতো ভূমিকা রাখতে উৎসাহী করা হয়। কয়েক মাস ধরে তাকে দেয়া হয় টেস্টোস্টেরন (পুরুষের হরমোন) থেরাপি। এরপর মুম্বইয়ের এক হাসপাতালে তার অপারেশন হয়। কেটে ফেলা হয় তার স্তন ও প্রজনন তন্ত্র। লাগিয়ে দেয়া হয় কৃত্রিম পুরুষাঙ্গ। তারপরই ইলা হয়ে যান একজন পুরুষ। তবে পুরুষ হিসেবে তার নাম কি তা প্রতিবেদনে প্রকাশ করা হয় নি। একজন মনোবিজ্ঞানী বলেছেন, লিঙ্গ পরিবর্তন বিষয়ক অপারেশনের পর আর আগের অবস্থায় ফিরে যাওয়ার কোনো পথ নেই। তাই এক্ষেত্রে রোগীকে বলা হয় একটি পথ বেছে নিতে। হয়তো তিনি নিজে নারী হবেন না হয় তিনি পুরুষ হবেন। অপারেশনের ৬ মাস আগে তাদেরকে এ সুযোগ দেয়া হয়। এমন অপারেশন করানোর আগে একজন রোগীর মানসিক অবস্থা পুরোপুরি যাচাই করে দেখা হয়। ম্যাক্স হাসপাতাল সাকেটের মানসিক স্বাস্থ্য ও আচরণগত বিজ্ঞান বিভাগের প্রধান ডাক্তার সমীর মালহোত্রা। তিনি বলেন, তিনিও এমন অপারেশন বৃদ্ধি পাচ্ছে বলে পর্যবেক্ষণ করেছেন।
উল্লেখ্য, এমন অপারেশন কোনো বেসরকারি হাসপাতালে করাতে গেলে সেখানে খরচ অনেক বেশি। তবে এর পরিমাণ কত তা জানা যায়নি।

সংবাদটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

সম্পাদক : কবীর আহমদ সোহেল

সম্পাদক কর্তৃক প্রগতি প্রিন্টিং এন্ড প্যাকেজিং লিঃ ১৪৯ আরামবাগ,ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও প্রকাশিত। বার্তা ও বাণিজ্যিক কাযালয়: ২০৭/১ ফকিরাপুল, আরামবাগ , মতিঝিল, ঢাকা-১০০০।

সিলেট অফিস: ২৩০ সুরমা টাওয়ার (৩য় তলা)
ভিআইপি রোড, তালতলা, সিলেট।
মোবাইল-০১৭১২-০৩৩৭১৫,০১৭১২-৫৯৩৬৫৩

E-mail: provatbela@gmail.com,

কপিরাইট : দৈনিক প্রভাতবেলা.কম

শিরোনাম :
চান্দাই ছাহেববাড়ীর উদ্যোগে রোহিঙ্গা শরনার্থিদের ত্রাণ প্রদান রোহিঙ্গা ইস্যুকে আড়াল করতে বাংলাদেশের সাথে যুদ্ধ চায় মিয়ানমার কারা এই ভাগ্যাহত রোহিঙ্গা? রোহিঙ্গাদের মতো পরিস্থিতি বাঙালীদেরও হতে পারে আরাকানে গণহত্যা বন্ধের দাবীতে সিলেটে বিক্ষোভ রোহিঙ্গা শরনার্থীদের যেমন দেখেছি উখিয়ায় মানবতার বিভৎস চেহারা ৭ খুন মামলা:তারেক সাঈদ, নূর হোসেনসহ ১৫ জনের মৃত্যুদণ্ড বহাল দুদকে প্রধান বিচারপতির বিরুদ্ধে ১২৬ অভিযোগ ‘সমাজে কী হচ্ছে, তা আমাদের টাচ করে’ প্রধান বিচারপতির পদত্যাগে আল্টিমেটাম কাজিরবাজার সেতুতে আহত মোটরসাইকেল রাইডারের মৃত্যু মোসাদ্দেক আউট, মমিনুল ইন নায়করাজ রাজ্জাক আর নেই নন্দিত নায়কের প্রত্যাবর্তন জৈন্তাপুরে সড়ক দূর্ঘটনায় ২ জনের প্রাণহানি বর্ষণ ও পাহাড়ী ঢলে জৈন্তাপুরে ফের বন্যা ফরিদীর সাথে থাকার মত পরিস্থিতি ছিল না: সুবর্ণা মুস্তাফা সুনামগঞ্জে কিশোরীকে গণধর্ষণ, যুবলীগ নেতা গ্রেপ্তার আজহার মিয়ার মৃত্যুতে নাচনের শোক ৪০ বছর ধরে ‘বানর নাচ’ই যার উপার্জন ক্যান্সার জয়ের স্বপ্নে বিভোর পপি আক্তার কাতার সংকট নিরসনে: সৌদি থেকে কুয়েতে এরদোগান ত্রাণ না পাওয়ার অভিযোগ করায় কান ধরে টানাহেঁচড়া ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ৩০টি স্বর্ণের বার জব্দ তিন নেতার বক্তব্যে বিএনপিতে তোলপাড় এইচএসসির ফল প্রকাশ, পাসের হার ৬৮. ৯১ মেয়রের উপস্থিতিতে এলাকাবাসীর সাথে কাউন্সিলরের অশুভ আচরন কলকাতার দৃষ্টিতে সেরা বাঙালি মাশরাফি ড. ফরাসউদ্দিন অর্থমন্ত্রী হচ্ছেন? জৈন্তাপুরে ছাত্রদলে দু’পক্ষের সংঘর্ষ ভাংচুর তাহসান- মিথিলার ডিভোর্স এর অন্তরালে .. খসরু প্রেসিডিয়াম সদস্য,রেজাউল আইন সম্পাদক বাচসাস নির্বাচন: রহমান নিশান প্যানেলের জয় ইউএনও তারেক সালমান গ্রেফতার ঘটনায় মাঠ প্রশাসনে ক্ষোভ:ডিসি- এসপির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা সুন্দর হাতের লেখায় নোবেল জয় হাইকোর্টে রাগীব আলীর জামিন না মঞ্জুর ঘরের সাজে লাইটের ব্যবহার শামীম ইকবাল চক্রের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রী বরাবরে অভিযোগ গোলাপগঞ্জে অটোরিক্সার ধাক্কায় নিহত হাসানের দাফন সম্পন্ন হাইওয়ে পুলিশের সাথে পরিবহন মালিক শ্রমিকদের মতবিনিময় ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত অভিবাসীদের ধরপাকড় বন্ধ জননেতা আব্দুল মান্নান, ইসলামী রাষ্ট্র ব্যবস্থা এবং সেই  তৃপ্তির হাসি সাইকেল চড়ে ভোমরা থেকে তামাবিল রাগীব আলীর জামিন আবেদনের আদেশ বৃহস্পতিবার ফেঞ্চুগঞ্জে ত্রাণ বিতরণে সমন্বয়হীনতা ফেঞ্চুগঞ্জে নৌকাডুবে দুইভাই’র মৃত্যু অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষা কর্মকর্তা রফিক উদ্দিন নিখোঁজ ঝাড়ফুকের কবিরাজও রোগী দেখবেন বন্যার্তদের পাশে সক্রিয়ভাবে দাঁড়ান: জাকির