,

উখিয়ায় মানবতার বিভৎস চেহারা

কবীর আহমদ সোহেল , উখিয়া থেকে ফিরে: পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকতের জনপদ কক্সবাজার। এ জেলারই একটি উপজেলা উখিয়া। দারিদ্রতার কষাঘাতে নিস্পিষ্ট এখানকার জনগোষ্ঠি। খরা দুর্ভিক্ষ জলোচ্ছাসের সাথেই বসবাস সাগরপাড়ের এই জনপদের মানুষের। দেশের মানুষই যে এলাকাকে খুন একটা ভাল কওে চেনেনা। সেই এলাকার নাম এখন আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে। দেশ বিদেশের বিভিন্ন মিডিয়া কর্মীদের পদচারণা এখন উখিয়ার আনাচে কানাচে। না কোন খ্যাতির জৌলসে কিংবা অর্জন অবদানের জন্য এ প্রচারণা নয়। মানবতার বিভৎস চিত্র দেখা যায় এই উখিয়ায়। নির্মমতা কতটুকু নিষ্ঠুর হতে পারে তা শোনা যায় এখানে। মানবেতর জীবনের তলদেশ কত গভীর তা দেখা যায় এখানে। ক্ষুধার জ¦ালা কত কঠিন অনুভব করা যায় এখানে। সভ্যযুগে গাছের পাতা দিয়ে লজ্জা নিবারনের প্রাণান্তকর প্রচেষ্ঠারত নারীকে দেখা যায় উখিয়ায়। চোখের সামনে সন্তানহারা বাকরুদ্ধ মা’দের সমাহার এখানে। স্বামীহারা স্ত্রী’র চোখের নোনাজল কত শক্ত তা দেখা যায়। পুত্রহারা পিতার আহাজারি, গৃহহারা, সহায় সম্পদ হারা, বাস্তুহারা বনিআদমের অস্ফুট আর্তচিৎকারে বাতাস ভারী হয়ে উঠা বিষাদময় দৃশ্যের জনপদ এখন উখিয়া।
মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর বর্বরতার হাত থেকে জীবন বাঁচাতে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গা জণগোষ্ঠির আশ্রয়স্থল এখন উখিয়ার কুতপালং এলাকায়। রোহিঙ্গা শরণার্থিদের অবস্থা দেখতে আমরা সরেজমিন পরিদর্শন করি উখিয়া উপজেলার প্রায় ২০ কিলোমিটার এলাকা। যেখানে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে রোহিঙ্গা শরণার্থি। গত শুক্রবার দিনভর রোহিঙ্গা শরনার্থিদের আশ্রয়স্থল ঘুরে দেখি। জানবার চেষ্ঠা করি ভাগ্যাহত বনি আদমদের যাপিত জীবনের কথা।
দৈনিক প্রভাতবেলা সম্পাদকের ( কবীর আহমদ সোহেল) নেতৃত্বে চার সদস্যের ( নিজাম উদ্দিন আহমদ, শিমুল আহমদ ও অর্পন দাস) একটি দল রোহিঙ্গা শরনার্থিদের আশ্রয়স্থল পরিদর্শন করেন। আশ্রিত এসব জনগোষ্ঠির সাথে কথা জানা যায় মিয়ানমার সামরিক বাহিনীর লোমহর্ষক বর্বরতা। স্বচক্ষে বনিআদমের মানবেতর জীবনের যে করুণ দশা অবলোকন হয় তা ভাষার কোন উপমায় উপস্থাপন করা দু:সাধ্য।
উখিয়া উপজেলা সদর থেকে টেকনাফমূখী সড়কে কিছুদুর এগুলেই সারি সারি মানুষ। নারী, পুরুষ, বৃদ্ধ, শিশু। সড়কের দু’পাশে উচু নীচু ঢালু ভূমিতে অবস্থান নিয়েছে। ওরা মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের রোহিঙ্গা। ওরা মুসলিম। মিয়ানমার সরকার রাখাইন রাজ্যে কোন মুসলমানের অস্তিত্ব স্বীকার করতে চায়না। যুগ যুগ ধরে চলে আসা মিয়ানমার সরকারের এই অনাচার এখন বর্বরতায় রুপ নিয়েছে। গ্রামের পর গ্রাম তারা জালিয়ে দিচ্ছে। ভাইর সামনে বোনকে, স্বামীর সম্মুখে স্ত্রীকে , মা বাবার উপস্থিতিতে নিজ কন্যাকে ধর্ষণ করছে মিয়ানমারের সামরিক সদস্যরা। পঞ্চাশোর্ধ আছদ মাহমদ প্রভাতবেলাকে বলেন, এক বিকেলে মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর ক’জন সদস্য তাদের গ্রামে আসে। সন্ধ্যায় চলে যায়। তারা শঙ্কিত হয়ে উঠেন। মাঝরাতে আগুনের লেলিহান শিখা দেখে ঘর থেকে বেরিয়ে পড়েন। দৌঁড়াতে দৌঁড়াতে এখন আশ্রয় বাংলাদেশের কুতপালংয়ের এক থাবুতে। সাথে তার পুত্র, সন্তান সম্ভবা পুত্রবধূ। কুতপালংয়ে এসেছেন তিনদিন আাগে। এখনো কোন খাবার জুঠেনি।
নারিমা হাড্ডিসার এক মহিলা। মুখাবয়বের কুঠরে ঢুকে গেছে তার দু’চোখ। গালের হাড় বেরিয়ে আসার উপক্রম। বাহু বের করে দেখালেন। বেয়নেটের আঘাতে ক্ষত বিক্ষত এই অবলা। পরিবারের সবাইকে (স্বামী ও এক সন্তান)মেরে ফেলেছে মিয়ানমারের বর্বর সেনারা। ৯ দিনে পৌছেছেন কুতপালংয়ে। নাড়ে পড়েনি কোন দানা পানি। বছর দুয়েকে এক শিশু কোলে। অনবরত কাঁদছে শিশুটি। এক প্লেটে ক’টি মোটা চালের ভাত কে দিয়ে গেছে বলতে পারেন না। ভাতের উপর মরিচ মাখানো ক’টুকার আলু। পশুখাদ্য তুল্য এই খাবার শিশুর প্লেটে।
উখিয়ার কুতপালং থেকে যতদুর চোখ যায় কেবল মানুষ আর মানুষ। ওরা সবাই রোহিঙ্গা শরণার্থি। এখনো আসছে। যারা এসেছে তারা যে যেখানে পারে আশ্রয় নেবার চেষ্ঠা করছে। কেই তাবু টানিয়ে। কেউ বাশ বেতের ঘর তুলে। কেউবা পরিবার পরিজন নিয়ে আস্টেপৃষ্টে এক জায়গায় গুজে আছে। যে যেখানে পাওে সেখানেই শুয়ে, বসে , দাঁড়িয়ে অবস্থানের চেষ্ঠা করছে। চোখের চাহনীতে খাবারের প্রতিক্ষা। বিচ্ছিন্নভাবে মাঝে মধ্যে ত্রানবাহি কো পরিবহন এলেই হুমড়ী খেয়ে পড়ছে। কার আগে কে নেবে? ত্রাণদাতা তখন সামাল দিতে না পেরে দ্রুত স্থান ত্যাগ করেন।
ভাগ্যবিড়ম্বিত এই বনিআদম যে যেখানে অবস্থান করছে তার পাশেই প্রাকৃতিক কাজ সেরে নিচ্ছে। দুর্গন্ধময় এক ভূতুড়ে পরিবেশ। কোথাও কোন শৃংখলা নেই। সবচেয়ে ভয়ংকর পরিস্থিতি সন্তান সম্ভবা মা’দের। প্রসব বেদনা সাথে ক্ষুধার জ¦ালায় যেন মৃত্যু যন্ত্রণায় কাতর এইসব হতভাগিনি। (চলবে)

সংবাদটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

সম্পাদক : কবীর আহমদ সোহেল

সম্পাদক কর্তৃক প্রগতি প্রিন্টিং এন্ড প্যাকেজিং লিঃ ১৪৯ আরামবাগ,ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও প্রকাশিত। বার্তা ও বাণিজ্যিক কাযালয়: ২০৭/১ ফকিরাপুল, আরামবাগ , মতিঝিল, ঢাকা-১০০০।

সিলেট অফিস: ২৩০ সুরমা টাওয়ার (৩য় তলা)
ভিআইপি রোড, তালতলা, সিলেট।
মোবাইল-০১৭১২-০৩৩৭১৫,০১৭১২-৫৯৩৬৫৩

E-mail: provatbela@gmail.com,

কপিরাইট : দৈনিক প্রভাতবেলা.কম

শিরোনাম :
ব্রাজিলকে রুখে দিয়েছে সুইজারল্যান্ড লোজানোর গোল জার্মানির পোষ্টে ! বাঘের সঙ্গে মিম ! জয় দিয়ে বিশ্বকাপ শুরু করলো সার্বিয়া সড়কে ৯ জনের প্রাণহানি বন্যা পরিস্থিতি ভয়াবহ: ৩লাখ মানুষ পানিবন্দি মৌলভীবাজারের সঙ্গে সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন মৌলভীবাজারের বন্যা মোকাবেলায় সেনাবাহিনী মোতায়েন রাত পোহালেই ঈদ প্রত্যাখ্যানকারীদের ধাওয়ায় পালিয়েছে পদবীধারী ছাত্রদল বুবলীর ‘অন্তঃসত্ত্বা’ নিয়ে নানা গুজব বাড্ডায় আ. লীগ নেতাকে গুলি করে হত্যা রুহ আফজায় প্রতারণা: হামদর্দকে জরিমানা ভোগ-এর প্রচ্ছদ মডেল সৌদি রাজকুমারী ‘মাফিয়া ডন’ মদদপুষ্ট কমিটিতে থাকতে চাননা প্রকৃত ছাত্রদল নেতারা ‘মাফিয়াডন” মদদপুস্ট কমিটি বাতিলের দাবীতে ছাত্রদলের বিক্ষোভ কোটি কোটি মানুষের হৃদয়ে রক্তক্ষরণ হচ্ছে-রিজভী চাঁদপুরে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ডাকাত জাকির নিহত শহীদ সাংবাদিক সেলিনা পারভীনের ছেলে সুমন জাহিদের মরদেহ উদ্ধার আরিফ-কামরানের প্রীতি ফুটবল ম্যাচ ড্র সিলেট ছাত্রদলের লেজে গোবরে মার্কা কমিটি ঘোষনা ছাত্রদলের ১১ টি ইউনিটের আংশিক কমিটির অনুমোদন ছাত্রলীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক-পুলিশের ত্রিমুখী সংঘর্ষ যাত্রীদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করলেন রেলমন্ত্রী “সরকারি হাসপাতালেই চিকিৎসা করতে হবে, কোথাও বলা নেই” ‘এখনও সম্মতি দেননি খালেদা জিয়া’ ১১ জেলায় যুবদলের নতুন কমিটি পবিত্র লাইলাতুল কদর পালিত কোর্টনি ওয়ালস এবং বাস্তবতা! মহিমান্বিত লাইলাতুল কদর আজ বিএনপি-জামায়াতের বিরুদ্ধে সোচ্চার থাকুন সরকার বেগম জিয়ার জীবন নিয়ে ছিনিমিনি খেলছে রউফ চৌধুরী ব্যাংক এশিয়ার চেয়ারম্যান সুলতান সালাউদ্দিন অাটক খালেদা জিয়ার চিকিৎসা সিএমএইচে সঙ্গীত শিল্পী অাসিফের জামিন উচ্ছাস আনন্দে অন্য রকম এক সন্ধ্যায় টাইগ্রেসরা পতাকা টানাতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে মৃত্যু খালেদা জিয়াকে চিকিৎসার জন্য লন্ডন পাঠানোর আহ্বান বি. চৌধুরীর নারী ক্রিকেট দলকে স্পিকারের অভিনন্দন অবিস্মরণীয় এশিয়া কাপ চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে চুমু খেলেন সালমা,রুমানারা গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে ঢাবি’র সাবেক শিক্ষকের মৃত্যু ‘মাইল্ড স্ট্রোক’ করেছিলেন বিএনপি চেয়ারপার্সন’ কানাডার গভর্নর জেনারেলের নৈশভোজে প্রধানমন্ত্রী ‘যৌন সুবিধা নিতেই দলের উচ্চ পদে নারীদের বহাল করেন ইমরান’ নারী এশিয়া কাপের ফাইনালে বাংলাদেশ ও ভারত পাকিস্তানকে হারিয়ে ফাইনালে ভারত প্রতি ম্যাচে জার্মানির কাছে সৌদি’র হার মাষ্টার আব্দুর রহিম আর নেই মালয়েশিয়াকে হারাতে পারলেই ফাইনাল