,

সুনামগঞ্জে কৃষকের লাভের টাকা এখন পিঁপড়ায় খাবে !

সুনামগঞ্জ সংবাদদাতাঃ সুনামগঞ্জের হাওরাঞ্চলে গত দু-বছরের কৃষকদের ক্ষতি কথা বিবেচনা করে সরকারী ভাবে ধানের দাম ও ধান সংগ্রহের পরিমান বাড়ানোর দাবী সর্ব মহলের।

দেনার দায়ে ডুবে আছেন স্থানীয় কৃষকেরা। চলতি বছর ব্যাংক,এনজিও,মহাজনি ঋন নিয়ে কেউ কেউ আবার দার দেনা করে বোরো ফসল রোপন করেছেন। কিন্তু এত ঋণের বোঝা নিয়েও ধান তোলার সময়ে কৃষকের মুখে হাসি নেই।

কারন জেলার বিভিন্ন বাজারের মধ্যমত্বভোগী,ফড়িয়া কৃষক,মিল-মালিক ও সুবিধাবাদী ব্যবসায়ীরা ফাঁদ পেতে আছে। সেই সুযোগ কাজে লাগাবে তারা। জেলার এবার ছত্রাকের আক্রমে কিছুটা ক্ষতি হলেও বোরো ধানের ফলন ভাল হওয়ায় মহা খুশি হাওরাঞ্চলের কৃষকগন। সরকারী ভাবে ধান সংগ্রহের পরিমানে সর্ব নিন্মের নির্দেশনা এ জেলায় আসায় কৃষকের আনন্দ এখন বিষাধে পরিনত হয়েছে। কৃষক ক্ষতির শিকার হবেন।
সেই লাভের টাকা এখন  পিঁপড়ায় খাবে।

সুনামগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারন কার্য্যালয় সূত্রে জানাযায়,জেলার আবাদ জমির পরিমান ২লাখ ৭৬হাজার ৪শত ৪৭হেক্টর। এবার ২লাখ,২১হাজার ৭৫০হেক্টর জমিতে চাষাবাদ হয়েছে। আর বোরো ধানের লক্ষ্যমাত্র ১২লাখ ১৯হাজার ৪১৪মেট্রিকটন ধান। তবে বিভিন্ন কারনে ধান ১০লাখ মেট্রিকটনের বেশী পাওয়া যাবে বলে জানাযায়। যার মূল্য ২হাজার ৯২৪কোটি ৬৭লাখ ৩৬হাজার টাকা।
জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের কার্যালয়ে সূত্রে জানাযায়,ধান সংগ্রহ করার জন্য নির্দেশনা আসছে সুনামগঞ্জে ৬হাজার মেট্রিক টন। গত দু বছর পূর্বে ছিল ৩০হাজার মেট্রিকটন। গত দু বছর বন্যার কারনে কোন নির্দেশনা ছিল না। এবার ৬হাজার মেট্রিকটন নির্দেশনা এসেছে।

জেলার বিভিন্ন হাওরপাড়েরর কৃষকগন জানান-প্রান্তিক কৃষকদের বিক্রয় যোগ্য ধান কৌশলে কিনে নিয়ে শুভংকরের ফাকি দেয় আমাদের (কৃষকদের) গোদাম কর্মকর্তা যোগ সাজোসে জেলার বিভিন্ন বাজারের প্রভাবশালী ব্যবসায়ী চক্র। সরকার ভুতুর্কি দিয়ে থাকেন তা জাতীয় ভাবে কৃষি ও কৃষকের মঙ্গলের জন্যই। সুবিধা দেবার বেলায় এবার কৃষকদের সাথে ভিন্ন রুপ কেন। কৃষি নির্ভর জাতীয় অর্থনীতিতে এবার কেন কৃষকদের সাথে বৈরী আচরণ। সরকার ধান কিনবে কম আর চাল কিনবে বেশী।

ক্ষোভের সাথে অনেক কৃষক বলেন,সরকার কি কৃষক বাচাঁবে না সুবিধা ভুগী আড়ৎদারদের বাচাঁবে। তাহলে চাল কম কিনে ধান ক্রয়ের পরিমান বাড়ানো হউক আর চাল যদি কেনা হয় তা কৃষকদের কাছ থেকেই কেনা হউক আড়ৎদারকেন। মিল-মালিকরা হাওর থেকে কম ধামে ধান কিনে চাল বানিয়ে দ্বিগুন দামে এই কৃষকদের কাছেই বিক্রি করে মুনাফা অর্জন করবে দ্বিগুন।

ক্ষমতাশালী ব্যবসায়ী চক্রের কাছে কি ক্ষুদ জনগোষ্টীর স্বার্থ দেশের বৃহত্তর কৃষকগনের স্বার্থ আজ গৌন হয়ে উঠেছে। এমন বৈরী আচরন করা হলে হাওরের লাখ লাখ কৃষক কষ্টের উৎপাদিত ফসলের সঠিক মূল্য না পেলে কৃষি ব্যবস্থা থেকে মুখ ফিরিয়ে নিবে। কৃষি ব্যবস্থা বিপর্যস্ত হলে অর্থনীতিতে বিরুপ প্রভাব ফেলবে।

জানাযায়,এপর্যন্ত সুনামগঞ্জ ১১টি উপজেলায় জেলার তাহিরপুর,জামালগঞ্জ,সুনামাগঞ্জ সদর,ধর্মপাশা, দিরাই,শাল্লা, জগন্নাথপুর,বিশ্বম্ভরপুর,দোয়ারা বাজার,ছাতকসহ প্রতিটি উপজেলায় দু-এক দিনের মধ্যে ধান কাটা শেষ হয়ে যাবে।

আবহাওয়ার বৈরী আচরন ও ধান কাটার শ্রমিক সংকট থাকায় ছেলে,মেয়ে,বউসহ সবাই কে নিয়ে আবহাওয়ার সাথে পাল্লা দিয়ে চলছে ধান মাড়াই ও শুকানোর কাজ শেষ করছেন কৃষকগন। হাওরাঞ্চলে এখন ৬৫০-৭৫০-৮০০টাকা ধরে ধান বিক্রি হচ্ছে। অথছ সরকারী ভাবে ধানের দাম ধরা হয়েছে ১০৪০টাকা।

সামায়ুন,রফিক,খেলু মিয়া,মইনুলসহ হাওরপাড়ের কৃষকগন বলেন,এবারও জেলার এত উৎপাদনের মাঝে মাত্র ৬হাজার মেট্রিকটন ধান সংগ্রহ করা হবে শুনেছি। তা একেবারেই নগন্য। এখানে ধান সংগ্রহের পরিমান না বাড়ালে আমাদের কৃষকদের স্বার্থই রক্ষা হচ্ছে না। চলতি বছর ব্যাংক,এনজিও,মহাজনি ঋন নিয়ে কেউ কেউ আবার দার দেনা করে বোরো ফসল রোপন করেছিল কৃষক।

তাহিরপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান কামরুল জানান,এবার ধান সংগ্রহের পরিমান ও দাম বাড়ানোর খুবেই যুক্তিযুক্ত দাবী। কেননা পর পর দু বছর অকাল বন্যায় হাওরে কৃষককের কষ্টের ফলানো বোরো ধান পানিতে তলিয়ে যায়। এই ক্ষতি পোষাতে সরকার এই বিষযটি বিবেচনা করতে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকগন উপকৃত হবে।

 

0Shares

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক : কবীর আহমদ সোহেল

সম্পাদক কর্তৃক প্রগতি প্রিন্টিং এন্ড প্যাকেজিং লিঃ ১৪৯ আরামবাগ,ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও প্রকাশিত। বার্তা ও বাণিজ্যিক কাযালয়: ২০৭/১ ফকিরাপুল, আরামবাগ , মতিঝিল, ঢাকা-১০০০।

Designed by ওয়েব হোম বিডি

সিলেট অফিস: ২৩০ সুরমা টাওয়ার (৩য় তলা)
ভিআইপি রোড, তালতলা, সিলেট।
মোবাইল-০১৭১২-০৩৩৭১৫,০১৭১২-৫৯৩৬৫৩

E-mail: provatbela@gmail.com,

কপিরাইট : দৈনিক প্রভাতবেলা.কম

শিরোনাম :
টাইগারদের ত্রিদেশীয় সিরিজ জয় রাজধানীর বায়ুদূষণ রোধে ব্যর্থতায় হাইকোর্টের ক্ষোভ অপূর্ণই থেকে গেল প্রিয়াঙ্কার ইচ্ছা সহকারী শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা:কবে কোন জেলায় হোটেলে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীর লাশ, মিলছে না অনেক প্রশ্নের উত্তর! সন্তানের জন্য দুধ চুরি : দায় কার? রোযা:সুদৃঢ় ভিত্তির উপর সুচরিত্র গঠনের উপকরণ ছাত্রলীগের হাতে লাঞ্চিত নারী চিকিৎসক রোযার উদ্যেশ্য ও উপকারিতা বেসামাল নাইমুলঃ ক্ষমা প্রার্থনা রোজার উদ্দেশ্য রোযার সমৃদ্ধ ইতিহাস জুটির বিশ্ব রেকর্ড গড়ল ওয়েস্ট ইন্ডিজ গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক রেজা কিবরিয়া সোমবার এসএসসি ও সমমানের ফল প্রকাশ আহলান সাহলান মাহে রামাদ্বান মওদুদ আহমদ হাসপাতালে ভর্তি সালাহউদ্দিনের দেশে ফেরা আটকে গেল ‘ফণী’ কখন কোথায় কিভাবে আঘাত হানতে পারে মনির উদ্দিন স্যার আর নেই পটুয়াখালীতে ‘ফণী’ আতঙ্ক: প্রস্তুত প্রশাসন কুষ্টিয়াজুড়ে ‘ফণী’ আতঙ্ক তীর, রূপচাঁদা, পুষ্টির তেল নিম্নমানের: ৫২ ব্র্যান্ডের পণ্যে ভেজাল হালদার খালে হাজার লিটার ফার্নেস ওয়েল, বিপর্যয়ের মুখে জীববৈচিত্র্য শমী’র বিরুদ্ধে ১’শ কোটি টাকার মানহানি মামলা বয়ফ্রেন্ড বিয়ে নাকচ করায় প্রেমিকার আত্মহত্যা! এবার মুখ খুললেন মিলার সাবেক স্বামী জব্দ হতে পারে ড. কামালের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট! জামায়াতে কোন প্রভাব পড়বে না- ডা. শফিক মঞ্জুর নেতৃত্বে জামায়াতের সংস্কারপন্থীদের নতুন মঞ্চ! তরুণ প্রজন্মকে রাজনীতি সচেতন হতে হবে : শিক্ষামন্ত্রী ছাত্রদল: ৬০ ভাগ অছাত্র, ৮০ ভাগ অনিয়মিত চলে গেলেন সাংবাদিক মাহফুজউল্লাহ ‘মনসুর ও মোকাব্বির কামালের সাহস পেয়েই সংসদে গিয়েছে’ ‘নতুন আকাঙ্ক্ষার বাংলাদেশ’র ঘোষণা দেবেন মন্জু শফিকুল হক আমকুনী:সিলেটের এক নক্ষত্র ‘উনি বলবেন সাদা, আমি বলছি অফ হোয়াইট- এখানে ঝগড়া করার কিছু নাইতো, বাই’ জয়ে শুরু লাল সবুজের মুমিনুলের বিয়েতে তারার মেলা রায়’র আগেই ফায়সালা সাংবাদিক মাকসুদা লিসার পিতার ইন্তেকাল “যেখানে সিঙ্গারা খেলে চলবে সেখানে অতিরিক্ত কিছু খাওয়ার দরকার নেই” ভারতের ভিসা বাতিল, দেশে ফিরলেন ফেরদৌস নুসরাত হত্যায় সরাসরি জড়িত নারী গ্রেপ্তার ওসিকে রক্ষায় ফেনীর এসপি’র কৌশল নুসরাত হত্যা: দুই আসামির জবানবন্দি, সব জানতেন আ’লীগ নেতা লন্ডনে ডি এম হাই স্কুলের পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত ছাতকের মঈনপুরে শতদল সাহিত্য পরিষদের নববর্ষ উদযাপন দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে নুসরাত হত্যা মামলা বুকে বুক মেলালেন আরিফ-কামরান