,

দারিদ্র বিমোচন ও অসমতা হ্রাস এবারের বাজেট প্রণয়নের মূল্য লক্ষ্য

প্রভাতবেলা প্রতিবেদকঃ এবারের বাজেট প্রণয়নের মূল্য লক্ষ্য হলো দারিদ্র বিমোচন ও অসমতা হ্রাস এবং জনগণের জীবনমানে মৌলিক ও গুণগত পরিবর্তন আনা বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।

 

আজ বৃহস্পতিবার (৭ জুন) কালো ব্রিফকেসে বন্দী বাজেট নিয়ে বেলা পৌনে ১টায় জাতীয় সংসদে প্রবেশ করেন  অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত ।

 

‘সমৃদ্ধ আগামীর পথযাত্রায় বাংলাদেশ’ শিরোনামে ২০১৮-১৯ অর্থবছরের বাজেট পেশ করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।  বাজেট বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রী বলেন, এটা মধ্যমেয়াদী নীতি-কৌশল।

 

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত টানা ১০ বাজেট পেশ রেকর্ড গড়েছেন। এবার ১২তম বাজেট পেশ করার মধ্য দিয়ে বিএনপি’র প্রয়াত অর্থমন্ত্রী এম সাইফুর রহমানের সমান বাজেট দেওয়ার গৌরব অর্জন করলেন তিনি। মুহিত সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের আমলের অর্থমন্ত্রী হিসেবে প্রথম বাজেট পেশ করেন ১৯৮২-৮৩ অর্থবছরে।

 

সরকারের শেষ বছরে ২৫ শতাংশ ব্যয় বাড়িয়ে ৪ লাখ ৬৪ হাজার ৫৭৩ কোটি টাকার বাজেট পেশ করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। ধারণা করা হচ্ছে এ বাজেটই অর্থমন্ত্রী হিসেবে তার শেষ বাজেট বক্তৃতা। তবে প্রস্তাবিত ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে স্বায়ত্তশাসিত সংস্থাসমূহের প্রায় ৭ হাজার ৮৬৯ কোটি বরাদ্দ বিবেচনায় নিলে বাজেটের আকার দাঁড়াবে প্রায় ৪ লাখ ৭২ হাজার ৪৪২ কোটি টাকা।

 

এবারের বাজেটে রাজস্ব আয়ের সম্ভাব্য আকার ২ লাখ ৯৬ হাজার ২শ’ ১ কোটি টাকা।

 

এনবিআর’র বাইরে অন্যান্য খাত থেকে রাজস্ব লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৯ হাজার ৭২৭ কোটি টাকা (জিডিপি’র দশমিক ৪ শতাংশ) এছাড়া কর বর্হিভূত খাত থেকে রাজস্ব আহরিত হবে ৩৩ হাজার ৩৫২ কোটি টাকা (জিডিপি’র ১ দশমিক ৩ শতাংশ)।

 

প্রস্তাবিত বাজেটে ব্যয়ের খাতগুলো উল্লেখ করে অর্থমন্ত্রী বলেন, প্রস্তাবিত বাজেটে বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগের কাজের শ্রেণি-বিন্যাস অনুযায়ী কাজগুলোকে তিনটি ভাগে ভাগ করা হয়েছে। এগুলো হচ্ছে সামাজিক অবকাঠামো, ভৌত অবকাঠামো ও সাধারণ সেবা খাত। সামাজিক অবকাঠামো খাতে বরাদ্দের প্রস্তাব করা হয়েছে ২৭ দশমিক ৩৪ শতাংশ, যার মধ্যে মানবসম্পদ খাতে (শিক্ষা, স্বাস্থ্য এবং সংশ্লিষ্ট অন্যান্য খাত) বরাদ্দের প্রস্তাব করা হয়েছে ২৪ দশমিক ৩৭ শতাংশ।

 

 

আগামী অর্থবছরের জন্য বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি চূড়ান্ত হয়েছে ১ লাখ ৮০ হাজার ৮৬৯ কোটি টাকা। বাজেটে মূল্যস্ফীতি ধরা হয়েছে ৫ দশািমক ৫ শতাংশ, প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা রাখা হয়েছে ৭ দশমিক ৮ শতাংশ।

 

সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচীর আওতায় উপকারভোগীর সংখ্যা বাড়ানো হয়েছে ১০ লাখ। মাতৃত্বকালীন এবং দুগ্ধদানকারী গরীব কর্মজীবি মায়েদের ভাতা ৩শ টাকা করে বাড়ানো হয়েছে।

 

৪ লাখ ২৬৮ কোটি টাকা ব্যয়ের মধ্যে বড় দুই খাত উন্নয়ন ব্যয় এবং অনুন্নয়ন ব্যয়। বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি এডিপির আকার ধরা হয়েছে হয়েছে ১ লাখ ৮০ হাজার ৮শ’ ৬৯ কোটি টাকা।

 

এবার অনুন্নয়ন বাজেটের সম্ভাব্য আকার ধরা হয়েছে ২ লাখ ৮৭ হাজার ৩শ’ ৩১ কোটি টাকা। রাস্তা-ঘাট, স্কুল, কলেজ, হাসপাতাল, বিদ্যুৎ কেন্দ্রসহ নানা ধরনের অবকাঠামো নির্মাণের বাইরে সরকার যে ব্যয় করে তাই অনুন্নয়ন ব্যয়। এর বড় অংশ চলে যায় সরকারী কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা, পেনশন পরিশোধ এবং দেশের ভেতর ও বিদেশ থেকে নেয়া ঋণের সুদ পরিশোধে, ভর্তুকি ও প্রণোদনা ব্যয় মেটাতে। আবার সরকার বছরজুড়ে বিভিন্ন ধরনের পূর্ত কার্য করে, শেয়ার ও ইক্যুইটিতে বিনিয়োগ করে তার সংস্থানও হয় অনুন্নয়ন মূলধনী ব্যয় থেকে।

 

আওয়ামী লীগ সরকারের দ্বিতীয় মেয়াদের শেষ বাজেট এটি। ২০০৮ সালে নির্বাচিত হবার পর বর্তমান সরকারের দশম বাজেট। অর্থমন্ত্রী হিসেবে এটা আবদুল মুহিতের ১২তম বাজেট। বর্তমান সরকারের প্রথম মেয়াদে ২০০৯-১০ অর্থ বছরে ১ লাখ ১৩ হাজার ৮১৫ কোটি টাকার বাজেট দিয়ে শুরু করেছিলেন মুহিত।এবারের বাজেটে রাজস্ব আয়ের সম্ভাব্য আকার ২ লাখ ৯৬ হাজার ২শ’ ১ কোটি টাকা।

 

আগামী অর্থবছরের জন্য বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি চূড়ান্ত হয়েছে ১ লাখ ৮০ হাজার ৮৬৯ কোটি টাকা। বাজেটে মূল্যস্ফীতি ধরা হয়েছে ৫ দশািমক ৫ শতাংশ, প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা রাখা হয়েছে ৭ দশমিক ৮ শতাংশ।

 

সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচীর আওতায় উপকারভোগীর সংখ্যা বাড়ানো হয়েছে ১০ লাখ। মাতৃত্বকালীন এবং দুগ্ধদানকারী গরীব কর্মজীবি মায়েদের ভাতা ৩শ টাকা করে বাড়ানো হয়েছে।

 

৪ লাখ ২৬৮ কোটি টাকা ব্যয়ের মধ্যে বড় দুই খাত উন্নয়ন ব্যয় এবং অনুন্নয়ন ব্যয়। বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি এডিপির আকার ধরা হয়েছে হয়েছে ১ লাখ ৮০ হাজার ৮শ’ ৬৯ কোটি টাকা।

 

এবার অনুন্নয়ন বাজেটের সম্ভাব্য আকার ধরা হয়েছে ২ লাখ ৮৭ হাজার ৩শ’ ৩১ কোটি টাকা। রাস্তা-ঘাট, স্কুল, কলেজ, হাসপাতাল, বিদ্যুৎ কেন্দ্রসহ নানা ধরনের অবকাঠামো নির্মাণের বাইরে সরকার যে ব্যয় করে তাই অনুন্নয়ন ব্যয়। এর বড় অংশ চলে যায় সরকারী কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা, পেনশন পরিশোধ এবং দেশের ভেতর ও বিদেশ থেকে নেয়া ঋণের সুদ পরিশোধে, ভর্তুকি ও প্রণোদনা ব্যয় মেটাতে। আবার সরকার বছরজুড়ে বিভিন্ন ধরনের পূর্ত কার্য করে, শেয়ার ও ইক্যুইটিতে বিনিয়োগ করে তার সংস্থানও হয় অনুন্নয়ন মূলধনী ব্যয় থেকে।

 

 

এবারের বাজেটকে আরো অংশগ্রহণমূলক করার লক্ষ্যে অর্থ বিভাগের ওয়েবসাইড  http://www.mof.gov.bd- এ বাজেটের সকল তথ্যাদি ও গুরুত্বপূর্ণ দলিল যে কোনো ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান পড়তে ও ডাউনলোড করতে পারবে এবং দেশ বা বিদেশ থেকে ওই ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ফিডব্যাক ফরম পূরণ করে বাজেট সম্পর্কে মতামত ও সুপারিশ পাঠানো যাবে।

 

আওয়ামী লীগ সরকারের দ্বিতীয় মেয়াদের শেষ বাজেট এটি। ২০০৮ সালে নির্বাচিত হবার পর বর্তমান সরকারের দশম বাজেট। বর্তমান সরকারের প্রথম মেয়াদে ২০০৯-১০ অর্থ বছরে ১ লাখ ১৩ হাজার ৮১৫ কোটি টাকার বাজেট দিয়ে শুরু করেছিলেন অর্থমন্ত্রী হিসেবে আবুল মাল আবদুল মুহিত।

 

0Shares

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক : কবীর আহমদ সোহেল

সম্পাদক কর্তৃক প্রগতি প্রিন্টিং এন্ড প্যাকেজিং লিঃ ১৪৯ আরামবাগ,ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও প্রকাশিত। বার্তা ও বাণিজ্যিক কাযালয়: ২০৭/১ ফকিরাপুল, আরামবাগ , মতিঝিল, ঢাকা-১০০০।

সিলেট অফিস: ২৩০ সুরমা টাওয়ার (৩য় তলা)
ভিআইপি রোড, তালতলা, সিলেট।
মোবাইল-০১৭১২-০৩৩৭১৫,০১৭১২-৫৯৩৬৫৩

E-mail: provatbela@gmail.com,

কপিরাইট : দৈনিক প্রভাতবেলা.কম

শিরোনাম :
ক্রাইস্টচার্চ ট্রাজেডি: নিহতের সংখ্যা ৪৯ স্বামীকে বাঁচাতে গিয়ে শাহাদাত বরণ করলেন সিলেটের পারভীন হামলাকারী অস্ট্রেলিয়ান শ্বেতাঙ্গ জঙ্গি বাংলাদেশ দল নিরাপদে ৫মিনিট আগে পৌঁছলে বাংলাদেশ দলের সর্বনাশ নিউজিল্যান্ডে মসজিদে শ্বেতাঙ্গ সন্ত্রাসীর গুলি: নিহত ৪০ ডায়াবেটিস কিডনির সমস্যায় কাঁচা পেঁপে ডাকসু ভিপি গণভবনে যাচ্ছেন শনিবার নাসিমা চৌধুরীর সম্মাননা, সংবর্ধনা মদিনা মার্কেটে ছাত্রলীগ কর্মী খুন ডাকসুঃ চমকের পর চমক টিএসসিতে ডাকসু ভিপি নুরুলের উপর ছাত্রলীগের হামলা মুফতি জাকারিয়ার জানাযায় লাখো মানুষের উপস্থিতি পারবে কি নুরু ইতিহাস হতে? এবার পুনর্নির্বাচনের দাবি ছাত্রলীগের ভিপি হওয়ার পর যা বললেন নুরুল নুরুল ভিপি, রাব্বানী জিএস ডাকসু : ১৫ হলের ফলাফল শামসুন্নাহার হলে ভিপি ইমি,জিএস ছপা কুয়েত মৈত্রী হলের প্রাধ্যক্ষ বরখাস্ত কুয়েত মৈত্রী হলে সিলযুক্ত ব্যালট রোকেয়া হল থেকে ট্রাঙ্কভর্তি ব্যালটপেপার উদ্ধার ভিপি প্রার্থী নুরের ওপর হামলা ছাত্রলীগ ছাড়া সব প্যানেলের ডাকসু বর্জন দরগাহ মাদ্রাসার মুহতামিম মুফতি জাকারিয়ার ইন্তেকাল ৭ মার্চের প্রাসঙ্গিকতা ও অনিবার্যতা ডিএনসিসি মেয়র আতিকের শপথ সুলতান মনসুর শপথ নিলেন হজ্ব পালনকালে সেলফি তোলা হারাম কানাইঘাট থানায় ফাহিমা- রেজওয়ানের বিয়ে বিএসএমএমইউতে নেয়া হবে খালেদাকে স্বচ্ছ প্রক্রিয়ার বিচার হলে সব মক্কেল নির্দোষ হতেন দুনিয়ার সমস্ত পথ বন্ধ হয়ে যায় কিন্তু আল্লাহর পথ সর্বদাই খোলা থাকে ‘রাজনীতি এখন মানুষের জন্য করা হয় না’ বাইপাস সার্জারি করা হবে কাদেরের কাদের আর খালেদার চিকিৎসা এক নয় মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে কাদের ইউনাইটেড হাসপাতালে মাওলানা হাবীব মাওলানা হাবীবের অবস্থা সংকটাপন্ন: ঢাকায় রওয়ানা সিসিকে পরামর্শক ব্যয়’র নামে লুটপাট: ক্ষুব্ধ পরিকল্পনামন্ত্রী বিজ্ঞাপনী পেরেকে আক্রান্ত নির্বাক বৃক্ষ ১০১ টাকা দেনমোহরে পলাশকে বিয়ে করেন সিমলা ঋতুস্রাবের পাঠ প্রাথমিক পর্যায় থেকে বাধ্যতামূলক ফুটবল তারকা সালাহ যেখানেই যান, সাথে থাকে পবিত্র কোরআন কাশ্মীরে বোমাবর্ষণ করেছে ভারত ডাকসু : ছাত্রদলের প্যানেলে নেই কেন্দ্রীয় নেতারা সুন্দরবনে র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ৪ জলদস্যু নিহত এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষা শুরু ১ এপ্রিল ডাকসু নির্বাচনে প্রগতিশীল ছাত্র জোটের প্যানেল ঘোষণা ডাকসু : ছাত্রলীগের বিদ্রোহী প্যানেল ঘোষণা