সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের শিরোপা জিতলো মালদ্বীপ

প্রকাশিত: ১০:০১ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৫, ২০১৮

সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের শিরোপা জিতলো মালদ্বীপ

মাঠে ময়দানে প্রতিবেদকঃ সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে শক্তিশালী ভারতকে ২-১ গোলে হারিয়ে দ্বিতীয় বারের মতো শিরোপা ঘরে তুললো দক্ষিণ এশিয়ার ফুটবলের আরেক দাপুটে দেশ মালদ্বীপ। দেশটি প্রথম সাফ শিরোপার দেখা পেয়েছিল ২০০৮ সালে। দলের হয়ে গোল দু’টি করেছেন ইব্রাহিম মাহুদি হোসেন ও আলি ফাসির।

নিবার (১৫ সেপ্টেম্বর) বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে প্রথমার্ধের ২০ মিনিট না পেরুতেই এগিয়ে যায় দ্বীপ রাষ্ট্র মালদ্বীপ। ১৯ মিনিটে হাসান নিয়াজের এগিয়ে দেয়া বল থেকে ডান পায়ের জোরালো শটে দলকে ১-০ তে লিড এনে দেন ইব্রাহিম মুহাদি।

পিছিয়ে পড়ে প্রথমার্ধেই সমতায় ফিরতে একরপর এক আক্রমণ রচনা করেছে ৭ বারের সাফজয়ী ভারত। কিন্তু মালদ্বীপ রক্ষণ দেয়ালে তাদের প্রতিটি আক্রমণই প্রতিহত হলে পিছিয়ে থেকেই বিরতিতে যেতে হয়।

 

ধারণা করা হচ্ছিলো দ্বিতীয়ার্ধে ঠিকই খেলায় ফিরবে ভারত। কিন্তু হলো তার উল্টো। ম্যাচের বয়স তখন ৬৬ মিনিট। স্টিফেন কনস্ট্যানটাইন শিষ্যদের সীমানায় বেশ গোছালো এক আক্রমণ রচনা করে ঢুকে পড়লো মালদ্বীপ। বক্সের ভেতর থেকে হামজাথ মোহাম্মেদ বলটি এগিয়ে দিলেন আলি ফাসিরকে। একমুহূর্ত সময় নিলেন না ফাসির। সোজা ঠেলে দিলেন ভারতের জালে। তাতেই ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেল পিটার সারগেট শিষ্যরা।

 

তখনও হাল ছাড়েনি ভারত। তাতে করে জয় না এলেনও ব্যবধান কমেছে। ইনজুরি টাইমে বাঁ-দিক থেকে বল নিয়ে গিয়ে মালদ্বীপ জালে জড়িয়ে দিলেন সুমিত। ব্যবধান কমে এল ২-১ এ।

 

এরপর বাকি সময় সতর্ক খেলা খেলে এ ব্যবধানেই জয় নিশ্চিত করে মাঠ ছাড়ে মালদ্বীপ।সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে শক্তিশালী ভারতকে ২-১ গোলে হারিয়ে দ্বিতীয় বারের মতো শিরোপা ঘরে তুললো দক্ষিণ এশিয়ার ফুটবলের আরেক দাপুটে দেশ মালদ্বীপ। দেশটি প্রথম সাফ শিরোপার দেখা পেয়েছিল ২০০৮ সালে। দলের হয়ে গোল দু’টি করেছেন ইব্রাহিম মাহুদি হোসেন ও আলি ফাসির।

নিবার (১৫ সেপ্টেম্বর) বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে প্রথমার্ধের ২০ মিনিট না পেরুতেই এগিয়ে যায় দ্বীপ রাষ্ট্র মালদ্বীপ। ১৯ মিনিটে হাসান নিয়াজের এগিয়ে দেয়া বল থেকে ডান পায়ের জোরালো শটে দলকে ১-০ তে লিড এনে দেন ইব্রাহিম মুহাদি।

পিছিয়ে পড়ে প্রথমার্ধেই সমতায় ফিরতে একরপর এক আক্রমণ রচনা করেছে ৭ বারের সাফজয়ী ভারত। কিন্তু মালদ্বীপ রক্ষণ দেয়ালে তাদের প্রতিটি আক্রমণই প্রতিহত হলে পিছিয়ে থেকেই বিরতিতে যেতে হয়।

 

ধারণা করা হচ্ছিলো দ্বিতীয়ার্ধে ঠিকই খেলায় ফিরবে ভারত। কিন্তু হলো তার উল্টো। ম্যাচের বয়স তখন ৬৬ মিনিট। স্টিফেন কনস্ট্যানটাইন শিষ্যদের সীমানায় বেশ গোছালো এক আক্রমণ রচনা করে ঢুকে পড়লো মালদ্বীপ। বক্সের ভেতর থেকে হামজাথ মোহাম্মেদ বলটি এগিয়ে দিলেন আলি ফাসিরকে। একমুহূর্ত সময় নিলেন না ফাসির। সোজা ঠেলে দিলেন ভারতের জালে। তাতেই ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেল পিটার সারগেট শিষ্যরা।

 

তখনও হাল ছাড়েনি ভারত। তাতে করে জয় না এলেনও ব্যবধান কমেছে। ইনজুরি টাইমে বাঁ-দিক থেকে বল নিয়ে গিয়ে মালদ্বীপ জালে জড়িয়ে দিলেন সুমিত।  এ ব্যবধানেই জয় নিশ্চিত করে মাঠ ছাড়ে মালদ্বীপ।

 

সর্বশেষ সংবাদ