,

‘কোচিং বাণিজ্য’ প্রসংগে কিছু কথা

কোচিং বানিজ্য নীতিমালা বন্ধের গেজেট আকারে প্রকাশিত হওয়ার সাথে বিভিন্ন জনেরা বিভিন্ন প্রকার মন্তব্য প্রকাশ করেছেন ফেইসবুকে। আমার কাছে বেশীর ভাগ মন্তব্য গুলোকেই মনে হয়েছে আত্মকেন্দ্রিক মন্তব্য। কোন ইতিবাচক সমালোচনা কমই পরিলক্ষিত হয়েছে। এটির সাথে জড়িয়ে দেয়া হয়েছে শিক্ষকদের বেতন বৈষম্যকে,ডাক্তারদের প্রাইভেট প্রেক্টিসকে, রাজনৈতিক বিদ্বেষকে। শিক্ষাব্যবস্থার আসল চিত্রকে সামনে রেখে গঠন মূলক বক্তব্য কমই পরিলক্ষিত হয়েছে। একজন শিক্ষক হিসাবে এমন একটি সংবেদনশীল বিষয়ে দু’লাইন না লিখলে নিজের বিবেকের কাছে খারাপ লাগবে। নিজেও প্রাইভেট পড়িয়েছি দীর্ঘ বাইশ বছরের মতো। কত টাকার পাহাড় বানিয়েছি পরিশ্রমের তুলনায় তার হিসেব তারাই বলতে পারবে যারা আমার সান্নিধ্যে এসেছেন। নিজ কলেজের কম স্টুডেন্টকেই প্রাইভেট পড়িয়েছি।এদের সংখ্যা হবে প্রাইভেট পড়ানো স্টুডেন্টদের ২/৩%। বাকীরা বিভিন্ন কলেজের। সে যাইহোক সেদিকে আমি যাবনা,কারন স্বল্প পরিসরে এখানে লিখে শেষ করতে পারবো না। আমিকিছু বিষয় বুঝতে পারছিনা বিধায় এ লিখা। প্রাইভেট পড়া যদি বাজে জিনিষ হয়ে থাকে তবে নিজ গৃহে অনধিক দশ জনকে ( অন্য কলেজের) এবং নিজ কলেজে নির্ধারিত ফি নিয়ে পড়ানোর সুযোগ থাকলো কেন? কোচিং যদি বাজে হয়ে থাকে তবে প্রশিক্ষিত শিক্ষক ছাড়া অন্যরা ছাত্র পড়াবে কেন? কেন নীতিমালায় সে বিষয়ে কোন ইংগিত নাই। তাহলে দাড়ালো কি — শিক্ষকের কাছে প্রাইভেট পড়বেনা, বানিজ্যক কোচিং এ যেতে আপত্তি নেই। শিক্ষকেরা কুমিল্লা HSTTI আর ঢাকার নায়েমে গিয়ে কিসের ট্রেনিং করেন? ট্রেনিং লেস যারা ওরা পড়াবে? মেধার বিকাশ এসব কোচিং এ হয়! তবে আমি বিশ্বাস করি অনেকেই উপকৃত হয়। ছাত্রদের যদি ক্লাস মূখী করতে হয় তবে সেগুলোও বন্ধ করতে হবে। আর, শিক্ষাপ্রতিষ্টানে লেখাপড়ার সুষ্টু পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে হবে। আমাকে কি কেউ বুকে হাত দিয়ে বলতে পারবেন, প্রাইভেট স্কুল /কলেজে শিক্ষার্থীদের যতটুকু টেইক কেয়ার করা হয়, তার অর্ধেক এম পি ও ভুক্ত বা সরকারী প্রতিষ্টানে করা হয়? দেখুন তদন্ত করে, বেশীর ভাগ এসব সরকারী/ বেসরকারী প্রতিষ্টানে সিলেবাসের কোন তোয়াক্কাই করেনা! স্টুডেন্টরা ঠিক মতো ক্লাসে যায়না। নিয়মিত গেলে তো আরেক পরিস্থিতি হতো। ফলাফল যা হবে তা হলো, ধনীরা বাসায় স্যার নিয়ে পড়াবে, প্রাইভেট কলেজে পড়াবে, ভালো কোচিং এ কোচিং করাবে, আর জাহান্নামে যাবে মধ্যবিত্ত আর দরিদ্র শ্রেণির ছাত্ররা। মেজরিটি একটি অংশ ক্ষতিগ্রস্ত হবে। ভুল বুঝবেন না,আমিও ব্যক্তিগত ভাবে কোচিং বানিজ্যের বিপক্ষে। কারণ, প্রাতিষ্টানিক পড়ালেখা তো প্রতিষ্টানেই শেষ হবে, কেন আবার স্যারের বাসায় আর কোচিং এ দৌড়া দৌড়ি হবে? কিন্তু প্রতিষ্টানে সুষ্টু শিক্ষাদানের গ্যারান্টি কে দেবে? রাজ নৈতিক দাংগা,প্রাকৃতিক দূর্যোগ, সীমিত লোকবল, দূর্নীতি বাজ শিক্ষক,অদক্ষতা ইত্যাদি কারনে যখন পড়ালেখার পরিবেশ বাঁধাগ্রস্থ হবে। রাজধানীর বিখ্যাত প্রতিষ্টানের বিখ্যাত শিক্ষকদের ও ঐসব প্রতিষ্টানের মেধাবী ও ধনী স্টুডেন্টদের মাথায় রেখে আইন প্রনয়ন মনে হয় ঠিক হবে না। সেটির জন্য তৃণমূল পর্যায়ে আরো জরীপ চালানোর প্রয়োজন আছে বলে মনে করি। শিক্ষাবিষয়ে মৌলিক সিদ্ধান্তের জন্য আরোও ভাবার প্রয়োজন আছে। শেষ পর্যন্ত এই বলে বিদায় নেই, শিক্ষার জন্য যা ভালো মনে করেছি, তাই লিখেছি। কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্টানকে হাইলাইটস বা খাটো করার জন্য নয়,তাই ভুল হলে নিজ গুনে ক্ষমা করে দেবেন।

0Shares

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক : কবীর আহমদ সোহেল

সম্পাদক কর্তৃক প্রগতি প্রিন্টিং এন্ড প্যাকেজিং লিঃ ১৪৯ আরামবাগ,ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও প্রকাশিত। বার্তা ও বাণিজ্যিক কাযালয়: ২০৭/১ ফকিরাপুল, আরামবাগ , মতিঝিল, ঢাকা-১০০০।

সিলেট অফিস: ২৩০ সুরমা টাওয়ার (৩য় তলা)
ভিআইপি রোড, তালতলা, সিলেট।
মোবাইল-০১৭১২-০৩৩৭১৫,০১৭১২-৫৯৩৬৫৩

E-mail: provatbela@gmail.com,

কপিরাইট : দৈনিক প্রভাতবেলা.কম

শিরোনাম :
“যেখানে সিঙ্গারা খেলে চলবে সেখানে অতিরিক্ত কিছু খাওয়ার দরকার নেই” ভারতের ভিসা বাতিল, দেশে ফিরলেন ফেরদৌস নুসরাত হত্যায় সরাসরি জড়িত নারী গ্রেপ্তার ওসিকে রক্ষায় ফেনীর এসপি’র কৌশল নুসরাত হত্যা: দুই আসামির জবানবন্দি, সব জানতেন আ’লীগ নেতা লন্ডনে ডি এম হাই স্কুলের পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত ছাতকের মঈনপুরে শতদল সাহিত্য পরিষদের নববর্ষ উদযাপন দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে নুসরাত হত্যা মামলা বুকে বুক মেলালেন আরিফ-কামরান রাত পোহালেই পহেলা বৈশাখ। ছাত্রলীগের হামলা অগ্নিসংযোগে ঢাবির বৈশাখী কনসার্ট বাতিল চবি ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা টাঙ্গাইলে স্বামীর সামনে স্ত্রীকে গনধর্ষণ ছাত্রলীগ নেতার প্রেম প্রত্যাখানের কারণেই নুসরাতকে হত্যা আমার বাবা ও একাত্তরের স্মৃতিময় স্থান নুসরাত হত্যার আসামি মকসুদ আ’লীগ নেতা: গ্রেফতার অব্যাহতি ওসমানীতে ৩ কেজি সোনাসহ যাত্রী আটক নুসরাত হত্যায় জড়িতদের শাস্তি পেতেই হবে: পরিবেশমন্ত্রী আজহার ও কায়সারের শুনানী ১৮ জুন এয়ার এ্যাম্বুলেন্সে ব্যাংককের পথে মাহফুজ উল্লাহ গ্রীনলাইনে পা হারানো রাসেল পেলেন ৫ লাখ টাকা অগ্নিদগ্ধ সেই রাফি আর নেই ওড়নায় হাত বেঁধে আগুন দেয় বোরকা পরিহিত ৪ জন! কার্যতালিকায় জামায়াত নেতা আজহারের আপিল পঞ্চপাণ্ডবের বিদায়ের পর ক্রিকেটের গুরুদায়িত্ব কারা নেবে? যেভাবে বয়স কমাচ্ছেন জয়া জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে সেই মাদ্রাসাছাত্রী চলে গেলেন ফায়ারম্যান রানা ৯০ দিনে সেরা দীপু মনি শিক্ষামন্ত্রীকে সিলেটে অভ্যর্থনা কেন এই সিকিউরিটি অ্যালার্ট- শেখ হাসিনা হাসপাতাল ছাড়লেন কাদের সংকট উত্তরণে দেশে বিদেশে সফরে জামায়াত নেতারা ধর্মপাশায় বোরো ধান কাটা শুরু সুনামগঞ্জে ৪ দালালসহ ২ রোহিঙ্গা আটক সিটিহার্ট মার্কেটে দোকান নিয়ে দ্বন্দ বেঈমান বের হয়ে যাও, মোকাব্বিরকে ড. কামাল শিক্ষকদের কান্নায় পিছু হটল পুলিশ ‘স্মার্ট শপ’র প্রতারণা, ঘড়ির বদলে পেঁয়াজ খালেদার জেল: নির্জন কারাবাস নাঈমকে খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে বলতে শিখিয়ে দিয়েছিলেন জয়! কে হচ্ছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক? ডাকসু ভিপি নুরকে মারধর বুধবার রাতে পবিত্র মি’রাজ ‘জীবন ভিক্ষা’ চাইলেন জয় শামছুন্নাহার হলের ভিপিকে ছাত্রলীগের ডিম নিক্ষেপ, ‘গায়ে হাত’ খালেদা জিয়ার ব্যাপারটার জন্য আমি ক্ষমা চাচ্ছি : নাঈমের মা ফারহান-শিবানীর ‌‘আগুন ছবি’ ফের ভাইরাল! ‘জি’ নেটওয়ার্কের সব চ্যানেল বাংলাদেশে বন্ধ শপথ নিলেন মোকাব্বির