চামড়া শিল্প কোন্ পথে?

প্রকাশিত: ৬:১৫ অপরাহ্ণ, আগস্ট ১৪, ২০১৯

চামড়া শিল্প কোন্ পথে?

“পাটশিল্পের মতো দেশের চামড়াশিল্পও ধ্বংসের আন্তর্জাতিক ও অভ্যন্তরীণ ষড়যন্ত্র চলছে । ‘বাংলাদেশের চামড়াশিল্প ক্ষতিগ্রস্ত হলে সবচেয়ে বেশি সুবিধা পাবে ভারত। দেশটির স্বার্থে দেশের কতিপয় লোক আমাদের চামড়াশিল্প ধ্বংসের পায়তারা করছে। এ বিষয়ে সরকারের আরও বেশি সতর্ক হওয়া প্রয়োজন।’

কবীর আহমদ সোহেল:  ডেঙ্গু আতঙ্ক নিয়েই দেশবাসী এবারের ঈদ উদযাপন শুরু করে। ঈদের দিন শেষ হতে না হতেই দেশব্যাপী দেখা দেয় আরেকটি আতঙ্ক । এ আতঙ্ক অর্থনৈতিক। এটা মোটেই গুজব নয়। একবারে বাস্তব। এ আতঙ্ক এতিম মিসকীনদের অধিকার কেড়ে নেয়ার আতঙ্ক। দেশের প্রচলিত‘ক্বওমী’ মাদরাসা শিক্ষা গলাটিপে হত্যাচেষ্টার আতঙ্ক। দেশের অন্যতম অর্থকরি চামড়া শিল্প ধ্বংসের আতঙ্ক। অতি মূল্যবান সম্পদ বিদেশীদের হাতে তুলে দেয়ার চক্রান্তের আতঙ্ক।

খবরে প্রকাশ,ক্ষুদ্র ও মৌসুমী ব্যবসায়ীরা কুরবানীর পর কম দামে পশুর চামড়া কিনেও বিক্রি করতে পারছেন না। তাই অনেকেই রাগে-ক্ষোভে চামড়া মাটিতে পুঁতে ফেলেছেন। কেউ নদীতে ভাসিয়ে দিয়েছেন। আবার অনেকে প্রতিবাদ জানাতে বেছে নিয়েছেন চামড়া কেটে ফেলার পথ।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে চামড়া পুঁতে ও কেটে ফেলে প্রতিবাদ জানানোর  ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। অনেক ফেসবুক ব্যবহারকারীরা ভিডিওটিতে লাইক দিয়েছেন। শেয়ারও করেছেন অনেকে। কমেন্টে কেউ কেউ লিখেছেন, চামড়া শিল্প ধ্বংস করে দিচ্ছে।

কুরবানী মৌসুমের এই চামড়ার সাথে ঘনিষ্টভাবে সম্পৃক্ত এদেশের ক্বওমী মাদরাসাগুলো। মাদরাসাগুলোর এতিম ফান্ডের অন্যতম উৎস কুরবানীর চামড়া। ঈদের দিনশেষে চামড়া বিক্রি করতে না পারা অনেক মাদরাসা শিক্ষক ছাত্রের আহাজারিতে বাতাস ভারী হয়ে উঠেছে।

৩/৪ হাজার টাকার চামড়ার মূল্য ১শ’ টাকার উপরে কোথাও বিক্রির খবর পাওয়া যায়নি। প্রাপ্ত তথ্যমতে অর্ধেকের বেশী চামড়া এবার অবিক্রিত থাকে। যে গুলো ক্ষোভে দুঃখে সংশ্লিষ্টরা ধ্বংস করে ফেলেছেন।

চামড়ার বাজার দরের এ অবস্থার জন্য অনেকেই অনেক কারণ উল্লেখ করছেন। মোটাদাগে উল্লেখ হচ্ছে, ট্যানারী ব্যবসায়ী সিন্ডিকেট, সরকারের উদাসীনতা, বিদেশী শক্তির হাত এবং মাদরাসা কর্তৃপক্ষের বাস্তবসম্মত কোন উদ্যোগ না থাকা এ বিপর্যয়ের কারণ।

আসলেই কী তাই? এটা কী হঠাৎ করেই ঘটেছে? চামড়া শিল্পের ভবিষ্যত কোন পথে? এ বিষয়ে সাম্প্রতিক কালের কিছু ঘটনাপ্রবাহ ও অনুসন্ধান কী বলে?

রাজধানীর হাজারীবাগের ট্যানারিগুলো বন্ধ হয়ে যাবার পর গ্যাস সংযোগ না থাকায় স্বাভাবিক কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে হেমায়েতপুরের চামড়া শিল্পনগরীতেও। ফলে দেশের চামড়াশিল্পে এক ধরনের স্থবিরতা বিরাজ করছে বেশ ক’বছর থেকে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, রফতানি আয়ের ক্ষেত্রে ট্যানারি দেশের দ্বিতীয় বৃহৎ খাত। শীর্ষে থাকা তৈরি পোশাক খাতের কাছাকাছি একমাত্র চামড়াশিল্প যেতে পারে। কিন্তু বর্তমানে দেশের এ খাতে স্থবিরতা দেখা দিয়েছে। অনেকদিন ধরে ট্যানারির উৎপাদন বন্ধ রয়েছে। থেমে গেছে রফতানিও। এ অবস্থা চলতে থাকলে দেশের চামড়াশিল্প ধ্বংস হয়ে যাবে বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।

রফতানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) তথ্য অনুযায়ী,  জুলাই ২০১৬ থেকে এপ্রিল ২০১৭ পর্যন্ত ১০ মাসেচামড়া ও চামড়াজাত পণ্য রফতানি করে আয় হয়েছে ১০১ কোটি ৮৯ লাখ মার্কিন ডলার।

আগের অর্থবছরের একই সময়ে রফতানি ছিল ৯২ কোটি তিন লাখ ডলার।২০১৬-১৭ অর্থবছরের ১০ মাসে চামড়া খাত থেকে রফতানি আয় বেড়েছে ১০ দশমিক ৭১ শতাংশ।

তথ্য বিশ্লেষণে দেখা যায়, ২০১৬ সালের জুলাই থেকে ২০১৭ সালের ম মার্চ পর্যন্ত চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য রফতানি করে আয় হয় ৯২ কোটি ৩০ লাখ ডলার। যা আগের অর্থবছরের একই সময়ে ছিল ৮৫ কোটি ১৩ লাখ ডলার। অর্থাৎ রফতানি আয় বাড়ে ছয় কোটি ৯০ লাখ ডলার।

২০১৭সালের এপ্রিলে এ খাত থেকে রফতানি আয় হয়েছে নয় কোটি ৫৯ লাখ ডলার। যা আগের বছর থেকে দুই কোটি ৬৯ লাখ ডলার বা ৩৯ শতাংশ বেশি।

ট্যানারি-মালিকদের অভিযোগ ছিল, হেমায়েতপুরের চামড়া শিল্পনগরী পুরোপুরি প্রস্তুত না করেই হাজারীবাগের কারখানা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এর পেছনে অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক কোনো ষড়যন্ত্র আছে কিনা তাও খতিয়ে দেখা উচিত। কারণ বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প কর্পোরেশনের (বিসিক) পক্ষ থেকে আদালতে মিথ্যা তথ্য দেয়া হয়েছে।

চামড়া শিল্পনগরীতে গ্যাস সংযোগ না দিয়েই বিসিক আদালতে জানায় যে, হেমায়েতপুরে গ্যাস, বিদ্যুৎ ও পানি সংযোগ দেয়া হয়েছে। এ ধরনের মিথ্যা তথ্য দেয়ার পেছনে গভীর ষড়যন্ত্র থাকতে পারে বলেও সেসময় অভিযোগ ছিল মালিকদের।

তারা বলছেন, বিসিক আদালতে আরও জানায় যে, সাভার চামড়া শিল্পনগরীতে কেন্দ্রীয় বর্জ্য শোধনাগারের (সিইসিপি) দু’টি মডিউল প্রস্তুত রয়েছে। ট্যানারি-মালিকরা সাভারে না যাওয়ায় মেশিনগুলো নষ্ট হচ্ছে। এছাড়া গ্যাস, বিদ্যুৎ ও পানির সংযোগ দেয়া হয়েছে।

‘কিন্তু বাস্তবে সাভারে ৫০টি কারখানার শোধনও সম্ভব হচ্ছে না। পাশাপাশি অপরিশোধিত তরল বর্জ্যগুলো ধলেশ্বরী নদীতে ফেলা হচ্ছে। এতে নদীর পানি দূষিত এবং পরিবেশের ভারসাম্য নষ্ট হচ্ছে’ যোগ করেন ট্যানারি-মালিকরা।

তাদের দাবি, সম্ভাবনাময় ট্যানারি খাত রক্ষা করতে দ্রুত হেমায়েতপুরের চামড়া শিল্পনগরীতে গ্যাস-বিদ্যুৎ সংযোগ দিতে হবে। চামড়া শিল্পনগরীতে ট্যানারি-মালিকদের জমি রেজিস্ট্রেশন করে দিতে হবে। একই সঙ্গে ট্যানারি-মালিকরা যাতে সহজে ব্যাংক থেকে ঋণ পেতে পারেন সে ব্যবস্থাও করতে হবে।

একাধিক ট্যানারি-মালিক প্রভাতবেলাকে বলেন, শিগগিরই ট্যানারির উৎপাদন স্বাভাবিক করা না গেলে বিদেশি ক্রেতা হারাবে বাংলাদেশ। এতে শুধু ট্যানারি-ব্যবসায়ীরাই নয়, দেশও অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে। নেতিবাচক প্রভাব পড়বে রফতানি আয়েও।

বাংলাদেশ ট্যানার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক প্রভাতবেলাকে বলেন, বর্তমানে দেশের ট্যানারি খাত কঠিন সময় পার করছে। এ পরিস্থিতি থেকে চামড়াশিল্প রক্ষা করতে হলে নগদ প্রণোদনা দিতে হবে। চামড়া শিল্পনগরীতে জমি রেজিস্ট্রির পাশাপাশি দ্রুত গ্যাস সংযোগও দিতে হবে।

‘ব্যাংক ঋণের জন্য জনতা ব্যাংকে গিয়েছিলাম। কিন্তু জমি রেজিস্ট্রেশনের কাগজ জমা না দিলে কোনো ঋণ দেয়া হবে না বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছে ব্যাংকটি। এভাবে চলতে থাকলে দেশের ট্যানারি খাত ধ্বংস হয়ে যাবে’- বলেন তিনি।

সংশ্লিষ্টরা বলেন, গার্মেন্টসের কাছাকাছি যদি কোনো খাত রফতানি আয় করতে পারে, সেটি চামড়াশিল্প। সাভারে পুরোপুরিভাবে ট্যানারি কার্যক্রম চালানো গেলে এ খাত থেকে রফতানি আয় অনেক বেড়ে যাবে। কিন্তু শিগগিরই ব্যবস্থা না নিলে রফতানি-ই বন্ধ হয়ে হবে।

‘এরই মধ্যে অনেক ক্রেতা মুখ ফিরিয়ে নিয়েছেন’ উল্লেখ করে ট্যানারী ব্যবসায়ীরা বলেন, ‘একবার বায়ার (ক্রেতা) হারালে তা আর ফিরে পাওয়া সহজ হবে না।’

হাজারীবাগের সেবা সংযোগ বিচ্ছিন্নের সময় বাংলাদেশ ট্যানার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি শাহীন আহমেদ বলেছিলেন, ‘দেশের চামড়াশিল্প ধ্বংসের ষড়যন্ত্র হচ্ছে। কেননা গ্যাস-বিদ্যুৎ না থাকলে এ শিল্প ধ্বংস হতে বাধ্য।’

‘চামড়া শিল্পনগরীতে অবিলম্বে কার্যক্রম চালানো না গেলে উৎপাদন কমে যাবে। আর তখনই বায়াররা অন্য দেশে চলে যাবে। আমাদের চামড়া বাইরে পাচার হয়ে যাবে।’

এদিকে, পাটশিল্পের মতো দেশের চামড়াশিল্পও ধ্বংসের আন্তর্জাতিক ও অভ্যন্তরীণ ষড়যন্ত্র চলছে বলে অভিযোগ করেন ট্যানারি ওয়ার্কার্স ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দ। তারা বলেন, ‘বাংলাদেশের চামড়াশিল্প ক্ষতিগ্রস্ত হলে সবচেয়ে বেশি সুবিধা পাবে ভারত। দেশটির স্বার্থে দেশের কতিপয় লোক আমাদের চামড়াশিল্প ধ্বংসের পায়তারা করছে। এ বিষয়ে সরকারের আরও বেশি সতর্ক হওয়া প্রয়োজন।’

সর্বশেষ সংবাদ