দৃশ্যমান হলো পদ্মা সেতুর ৩১৫০ মিটার

প্রকাশিত: ৫:৩০ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৪, ২০২০

দৃশ্যমান হলো পদ্মা সেতুর ৩১৫০ মিটার

প্রতিনিধি, মুন্সীগঞ্জ:

 

মুন্সীগঞ্জের জাজিরা প্রান্তে পদ্মা সেতুর ৩২ ও ৩৩ নম্বর পিলারের ওপরে বসল পদ্মা সেতুর ২১তম স্প্যান ‘৬বি’। এতে পদ্মা সেতুর মূল অবকাঠামোর তিন হাজার ১৫০ মিটার দৃশ্যমান হলো।

 

মঙ্গলবার (১৪ জানুয়ারি) বিকাল পৌনে ৩টার দিকে পদ্মা সেতুর জাজিরা প্রান্তে ৩২ ও ৩৩ নম্বর পিলারের ওপর ধূসর রঙের ‘৬বি’ স্প্যানটি বসানো হয়। ২১তম স্প্যানটি বসানোর মধ্য দিয়ে চলতি বছরের প্রথম স্প্যান বসানো হলো। পদ্মা সেতু প্রকল্পের সহকারী প্রকৌশলী হুমায়ুন কবীর এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

 

 

হুমায়ুন কবির জানান, আবহাওয়া জনিত কারণে স্প্যান বসানোর কাজ কিছুটা বিলম্ব হয়ে বেলা ১১টার দিকে শুরু হয়। এর আগে মঙ্গলবার সকালে মুন্সীগঞ্জের মাওয়া প্রান্তের কুমারভোগ কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ড থেকে ১৫০ মিটার দৈর্ঘ্যের ও তিন হাজার ১৪০ টন ওজনের ২১তম স্প্যান ‘৬বি’ পিলারের কাছে নেওয়া হয়। স্প্যানটি বহন করে তিন হাজার ৬০০ টন ওজন ক্ষমতাসম্পন্ন ভাসমান ক্রেনবাহী জাহাজ ‘তিয়ান-ই’। পরে ক্রেনের সাহায্যে স্প্যানটি জাজিরা প্রান্তের ৩২ ও ৩৩ নম্বর পিলারের ওপর স্থাপন করা হয়।

 

 

প্রকৌশলী সূত্রে জানা যায়, প্রতি মাসে তিনটি স্প্যান বসানোর পরিকল্পনা আছে। এ শিডিউল মেনে স্প্যান বসাতে পারলে আগামী বছরের জুলাই নাগাদ ৪১টি স্প্যান বসানো শেষ হবে। পদ্মা সেতুর মোট ৪১টি স্প্যানের মধ্যে চীন থেকে মাওয়ায় এসেছে ৩৩টি স্প্যান। এর মধ্যে ২১টি স্প্যান স্থায়ীভাবে বসে গেছে। আগামী বছরের মার্চের মধ্যে সব স্প্যান দেশে চলে আসবে।

 

 

উল্লেখ্য, পুরো সেতুতে দুই হাজার ৯৩১টি রোডওয়ে স্ল্যাব বসানো হবে। আর রেলওয়ে স্ল্যাব বসানো হবে দুই হাজার ৯৫৯টি। ২০১৪ সালের ডিসেম্বরে সেতুর নির্মাণ কাজ শুরু হয়। সেতু নির্মাণে ব্যয় হচ্ছে ৩৩ হাজার কোটি টাকা। মূল সেতু নির্মাণের জন্য কাজ করছে চীনের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি (এমবিইসি) ও নদী শাসনের কাজ করছে দেশটির আরেকটি প্রতিষ্ঠান সিনো হাইড্রো করপোরেশন। ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ এ বহুমুখী সেতুর মূল আকৃতি হবে দোতলা। কংক্রিট ও স্টিল দিয়ে নির্মিত হচ্ছে এ সেতুর কাঠামো।

 

 

প্রভাতবেলা/এমএ

  •  
  •  
  •  
  •  

সর্বশেষ সংবাদ