জনগণের ভাগ্য পরিবর্তন করাই আমাদের লক্ষ্য : প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত: ১১:৫৪ পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ২৫, ২০২০

জনগণের ভাগ্য পরিবর্তন করাই আমাদের লক্ষ্য : প্রধানমন্ত্রী

 

প্রভাতবেলা ডেস্ক:

 

দেশের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন করাই সরকারের মূল লক্ষ্য বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন করাই আমাদের মূল লক্ষ্য। আমরা এ লক্ষ্য নিয়ে কাজ করে যাচ্ছি। আওয়ামী লীগ মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনে কাজ করে যাবে।

 

 

শুক্রবার (২৪ জানুয়ারি) বিকালে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়াস্থ বাসভবনে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা দলের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটি ও উপদেষ্টা কাউন্সিলের যৌথ বৈঠকে এসব কথা বলেন।

 

 

শেখ হাসিনা বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপনের জন্য আমরা কর্মসূচি গ্রহণ করেছি। আওয়ামী লীগের পাশাপাশি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানও উদ্যোগ নিয়েছে। মুজিববর্ষ ঘিরে মানুষের উৎসাহ বৃদ্ধি পাচ্ছে তা বোঝা যাচ্ছে।

 

 

বঙ্গবন্ধুর নাম কেউ কখনো মুছে ফেলতে পারবে না উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ১৯৭৫ সালে জাতির পিতাকে হত্যার মাধ্যমে হত্যাকারীরা তার নাম মুছে দিয়েছিল। আজকে সেই নামটি আবার উচ্চারিত হচ্ছে। বঙ্গবন্ধুর নাম আর কখনো কেউ মুছে ফেলতে পারবে না। কারণ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু সারা জীবন মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠায় সংগ্রাম করেছেন। এ দেশের শোষিত-বঞ্চিত মানুষের জন্য তিনি কাজ করেছেন।

 

 

আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের প্রত্যেক নেতাকর্মীকেই জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ নিয়ে চলতে হবে। বাংলাদেশকে আমরা জাতির পিতার ক্ষুধামুক্ত, দারিদ্র্যমুক্ত স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে তুলব এটিই আমাদের মূল লক্ষ্য।

 

 

তিনি বলেন, আমরা আজকে যে উচ্চ প্রবৃদ্ধি অর্জন করেছি এবং অর্থনৈতিকভাবে আমরা ভালো অবস্থানে আছি। এর সুফল একেবারে তৃণমূল পর্যায়ের গ্রামের মানুষ যেন পায় সেই লক্ষ্য নিয়ে কাজ করে যাচ্ছি। আমরা সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে আমাদের অভিযান অব্যাহত রেখেছি।

 

 

সভা শেষে বিকাল পৌনে ৪টার দিকে টুঙ্গিপাড়া থেকে ঢাকার উদ্দেশে রওনা হন তিনি।

 

 

এর আগে বেলা ১১টা ১০ মিনিটে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা টুঙ্গিপাড়া উপজেলা কমপ্লেক্স মাঠে নির্মিত হেলিপ্যাডে অবতরণ করেন। এ সময় হেলিপ্যাডে কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ তাকে স্বাগত জানান। বেলা ১১টা ২০ মিনিটে প্রধানমন্ত্রী হেলিপ্যাড থেকে সড়ক পথে বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে পৌঁছান। সেখানে জাতির পিতার সমাধির পাশে বসে কুরআন তেলাওয়াত করেন। টুঙ্গিপাড়া আসলে প্রতিবারই বঙ্গবন্ধুর সমাধি সৌধের পাশে বসে কুরআন তেলাওয়াত করে দোয়া করেন তিনি।

 

 

দুপুর ১টায় জাতির পিতার সমাধি সৌধের বেদিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পরে দলীয় সভাপতি হিসেবে দলের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদ ও উপদেষ্টা পরিষদের সদস্যদের নিয়ে শ্রদ্ধার্ঘ অর্পণ করেন। পরে ফাতেহা পাঠ ও বিশেষ মোনাজাত করে বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের নিহত সদস্যদের রূহের মাগফেরাত কামনা করে দোয়া করা হয়। জুমার নামাজের পর আওয়ামী লীগের নবগঠিত কেন্দ্রীয় কমিটির যৌথ সভা শুরু হয়।

 

 

প্রভাতবেলা/এমএ

  •  
  •  
  •  
  •  

সর্বশেষ সংবাদ