অপেক্ষার ৮ বছর!

প্রকাশিত: ১:০১ পূর্বাহ্ণ, এপ্রিল ৩, ২০২০

অপেক্ষার ৮ বছর!

ছাত্রদল নেতা ইফতেখার আহমদ দিনার। ‘গুম’ নামক অপরাজনীতির শিকার। সন্ধান মেলেনি ৮ বছরেও। পরিবারের, সন্তানের, মা বাবার বুকফাটা চিৎকার আর শোনা যায়না। চোখের জলও ফুরিয়ে গেছে তাদের। আমাদের রাষ্ট্রব্যবস্থা বধির করে রেখেছে আমাদের। অন্যায়কে অন্যায় বলতে পারিনা।জমিনে এতবেশী অপরাধ! তাইতো বিপর্যয়, মহামারী। সোহেল ইবনে রাজা তার ফেসবুকে দিনারকে স্মৃতিচারণ করে একটি ট্রপিক লিখেছেন। প্রভাতবেলা’র পাঠকদের জানাতে আমরা তার লেখাটি হুবুহু প্রকাশ করলাম- বার্তা সম্পাদক

‘ক্যালেন্ডারের পাতায় ৩ এপ্রিল তারিখটা আসলেই বুকটা ভেঙ্গে চৌচির হয়ে যায়। তিনি রক্তের কেউ না,তারঁ সাথে আত্মীয়তারও বন্ধন নেই। সর্ম্পকটা ছিল শুধুমাত্র আদর্শিক ও রাজনৈতিক। সেই স্কুল জীবনেই মহান স্বাধীনতার ঘোষক শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের আদর্শের প্রেমে পড়েছিলাম। এরপর থেকে শৈশব, কৈশোর ও যৌবনের একটা বিশাল সময় কেটেছে এবং কাটছে শহীদ জিয়াউর রহমানের ধানের শীষের সাথেই।
জাতীয়তাবাদী আদর্শের পতাকাতলে সমবেত হতে যেসকল সুর্য সৈনিক আমার অনুপ্রেরণার উৎস তাদের মধ্য থেকে তিনি ছিলেন অন্যতম।বলছিলাম ছাত্রদলের সোনালী ফসল ইফতেখার আহমদ দিনার ভাইয়ের কথা। যিনি ক্ষমতাসীন সরকারের গুম নামক অপরাজনীতির শিকার হয়ে আজ দীর্ঘ ৮ বছর থেকে নিখোঁজ রয়েছেন। শুধু দিনার ভাই ই নয়- গুমের এই মিছিলে শামিল করা হয়েছে সিলেটের কোটি জনতার হৃদয়ের স্পন্দন জননেতা এম. ইলিয়াস আলী ভাই, ছাত্রদল নেতা জুনেদ ভাই, ইলিয়াস ভাইয়ের গাড়ী চালক আনসার আলী ভাই-কে। গুমের ব্যবধান ছিল মাত্র ১৫দিন। গুম নামক প্রতিহিংসার রাজনীতির নির্মমতার শিকার হয়েছেন সিলেটের উল্লেখিত নেতৃবৃন্দ সহ সারাদেশের শত শত নেতৃনৃন্দ।
কেউ কেউ মুমুর্ষ অবস্থায় ফিরলেও ফিরেন নি, ইলিয়াস ভাই, দিনার ভাই, জুনেদ ভাই ও আনসার আলী ভাই। এতদিনেও রাষ্ট্র ও সরকার কর্তৃক এই জলজ্যান্ত মানুষের সন্ধান দিতে না পারা প্রমাণ করে এর সাথে কারা জড়িত।
আজ ৩ এপ্রিল ২০২০। আজ থেকে ৮ বছর আগে এমন একটি দিনে আমার ছাত্র রাজনীতির অভিভাবক সিলেট জেলা ছাত্রদলের সাবেক সফল সহ-সাধারন সম্পাদক ও ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সংসদের সাবেক সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ইফতেখার আহমদ দিনার ভাই ঢাকার উত্তরা থেকে ছাত্রদল নেতা জুনেদ ভাই সহ গুম হন। ৮ বছর পেরিয়ে গেলেও আজ অবধি তাদের সন্ধান পায়নি পরিবার ও দল। দীর্ঘ ৮ বছর পরেও সন্তানকে ফিরে পেতে তীর্থের কাকের মতো অপেক্ষায় রয়েছেন দিনার ভাইয়ের মা-বাবা,অপেক্ষায় আছেন ভাই-বোন।মায়ের কাছে মেয়ে মাইশা আর ছেলে রাইয়ানের প্রশ্ন বাবা কোথায়?প্রতীক্ষার প্রহর গুনছেন দিনার ভাইয়ের পরিবারের অন্য সদস্য ও দলের নেতাকর্মী।অবুঝ সন্তানগুলো অন্য সন্তানদের মতো তাদের আব্বুকে জড়িয়ে ধরে আদর করতে চায়,পেতে চায় বাবার সোহাগ।
দিনার ভাইয়ের ১৮ বছর বয়সী ছেলে রাইয়ান আর ১৫ বছর বয়সী মেয়ে মাইশা দীর্ঘ ৮ বছর বাবার আদর ছাড়া রয়েছে। বাবা নামক বটবৃক্ষ থেকেও যেনো নেই তাদের। বাবা ছাড়া বড় হওয়া যে কতটুকু বেদনাদায়ক এই দুই সন্তানের জন্য তা পরিবারের অন্য সদস্যদের কান্নামিশ্রিত কণ্ঠে স্পষ্ট। নিজেদের বড় সন্তানকে হারিয়ে শোকে পাথর দিনার ভাইয়ের মা-বাবা। তাদের মৃত্যুর আগে একবারের জন্য হলেও সন্তানকে দেখতে চান। একটিবারের জন্য হলেও তাদের পরিবারের বড় ছেলে বুকের মানিককে বুকে জড়িয়ে ধরতে চান তারা।
প্রতিবছর এই দিনটি এলে ছাত্রদল, দিনার সন্ধান পরিষদ ও দিনার সন্ধান ছাত্র পরিষদ সহ দিনার ভাইয়ের পরিবারের পক্ষ থেকে নানান কর্মসুচী হাতে নেয়া হয়। তবে এইবছর বিশ^ব্যাপী মহামারী আকার ধারণকারী করোনা ভাইরাসের কারণে সকল মানুষই নিরাপদ সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে স্বেচ্ছায় হোম কোয়ারেন্টেইনে রয়েছে বিধায় তেমন কোন কর্মসুচী হাতে নেয়া সম্ভব হচ্ছেনা। করোনা ভাইরাসের কারণে বর্তমান সরকার ষড়যন্ত্রমুলক মামলার ফরমায়েসী রায়ে কারান্তরীণ হয়ে চিকিৎসাধিন অবস্থায় হাসপাতালে থাকা গণতন্ত্রের মা বিএনপি চেয়ারপার্সন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিয়েছে। অথচ দুই বছরের বেশী সময় ধরে দেশনেত্রীর মুক্তির জন্য বিএনপি আইনী লড়াইয়ের পাশাপাশি রাজপথে নানা কর্মসুচী পালন করে আসছিলো। কোন কিছুতেই সরকার দেশনেত্রীকে মুক্তি দিচ্ছিলনা। সর্বশেষ সম্প্রতি দেশনেত্রীকে সরকার যেভাবেই হোক যে উদ্দ্যেশেই হোক মুক্তি দিয়েছে। এজন্য সরকারকে ধন্যবাদ জানাই।
ইতোমধ্যে করোনা ভাইরাসের কারণে দেশব্যাপী ৩০০০ কারাবন্দীকে মুক্তি দেয়ার উদ্যোগ নিচ্ছে সরকার। সেটাও ভাল উদ্যোগ, এতে কোন সন্দেহ নাই। তবে সরকারের কাছে প্রশ্ন রাখতে চাই?- যারা গুম হয়েছে তাদের জন্য কি কোন উদ্যোগ নেয়া যায়না?তাদের সর্বশেষ অবস্থান কি সেটাকে সেই নিখোঁজ নেতৃবৃন্দের পরিবারের সদস্যদের জানানো যায় না?রাষ্ট্র বা সরকার যদি তাদের শেষ পরিনতিটাও প্রকাশ করে তবুও ত নিখোঁজ নেতৃবৃন্দের পরিবারের অপেক্ষার অবসান ঘটবে।

রাজনৈতিক কিংবা আদর্শিক কারণে আমি সরকার দলের প্রতিপক্ষ। কিন্তু আমি তো দেশের নাগরিক। একজন নাগরিক হিসেবে সরকারের কাছে জোর দাবী জানাচ্ছি অবিলম্বে জননেতা এম ইলিয়াস আলী, ছাত্রদল নেতা ইফতেখার আহমদ দিনার ও জুনেদ আহমদ এবং আনসার আলী সহ গুমকৃত সবাইকে অক্ষত অবস্থায় ফিরিয়ে দিন। স্বজনহারা পরিবারের দীর্ঘ প্রতীক্ষার অবসান করুন।
পরিশেষে আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করি-হে আল্লাহ তুমি করোনা নামক ভাইরাস থেকে আমাদের কে হেফাজত কর, ইফতেখার আহমদ দিনার ভাই সহ গুম হওয়া সকল নেতৃবৃন্দকে তোমার কুদরতি শক্তি দিয়ে পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দাও। আমীন’

  • 760
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সর্বশেষ সংবাদ