‘ এই মসজিদে তাঁর হাজারো স্মৃতি রয়েছে’

প্রকাশিত: ৭:৩৩ অপরাহ্ণ, জুলাই ১৭, ২০২০

‘ এই মসজিদে তাঁর হাজারো স্মৃতি রয়েছে’

সংবাদদাতা, ঢাবি: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের  সাবেক উপাচার্য, বরেণ্য শিক্ষাবিদ ও  আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন রাষ্ট্রবিজ্ঞানী অধ্যাপক এমাজউদ্দীন আহমদের  বড় ছেলে  জিয়াউল হাসান ইবনে আহমদ কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, ‘ বাবা এই মসজিদে জুমা ও ওয়াক্তের নামাজগুলো নিয়মিত আদায় করতেন। বহুদিন ধরে তিনি এই মসজিদের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে সরাসরি জড়িত ছিলেন। এই মসজিদে তাঁর হাজারো স্মৃতি রয়েছে। এ কারণে উনার প্রথম জানাজা এই মসজিদেই আদায় করা হয়। অনেকেই বলেছেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদে প্রথম জানাজা পড়ানোর জন্য। কিন্তু আমরা সেখানে তাঁকে নিইনি।’ সেখানে দ্বিতীয় জানাজা অনুষ্ঠিত হবে।

‘বাবার সঙ্গে এই মসজিদে (রাজধানীর কাঁটাবনের মসজিদে মুনাওঅর) বহু বছর ধরে নামাজ আদায় করছি। মসজিদে বাবা আর আসবেন না, কিন্তু আমি আসব।’ এমন স্মৃতিচারণ করে জিয়াউল হাসান ইবনে আহমদ বলেন, ‘করোনার কারণে কয়েক মাস ধরে বাবা এই মসজিদে আসতে পারতেন না। এ জন্য তিনি অনেক অনুশোচনা করতেন। আফসোস করে তিনি আমার কাছে জানতে চাইতেন, মসজিদে না যাওয়ার কারণে আল্লাহ তাঁকে (বাবা) ক্ষমা করবেন কি না। তখন আমি বাবাকে সান্ত্বনা দিয়ে বলতাম, বাবা করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে আমরা আবার মসজিদে যাব। অথচ, আর তাঁর মসজিদে যাওয়া হবে না।’

আজ শুক্রবার দুপুরে রাজধানীর কাঁটাবনের মসজিদে মুনাওঅরে অধ্যাপক এমাজউদ্দীন আহমদের জানাজার আগে দোয়া চেয়ে বক্তব্য প্রদানকালে তিনি এ কথা বলেন।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

সর্বশেষ সংবাদ