‘শিরোপা নির্ধারণী’ ম্যাচে জিমখানাকে হারিয়েছে বঙ্গবীর অগ্রগামী

প্রকাশিত: ৭:২৭ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০২৪

‘শিরোপা নির্ধারণী’ ম্যাচে জিমখানাকে হারিয়েছে বঙ্গবীর অগ্রগামী

 

 

 

 

তানজীল শাহরিয়ার

 

মাহা ১ম বিভাগ ক্রিকেট লীগ ২০২৩-২৪’র গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে জিমখানা ক্লাবকে ৪৮ রানে হারিয়েছে বঙ্গবীর অগ্রগামী ক্রীড়া চক্র। এই ম্যাচ জয়ের ফলে শিরোপা থেকে আর মাত্র এক ম্যাচ দূরত্বে রয়েছে বঙ্গবীর অগ্রগামী ক্রীড়া চক্র।

 

সকালে টসে জয়লাভ করে জিমখানা প্রথমে বোলিং করার সিদ্ধান্ত নেয়। ফর্মে ফেরা তান্না এবং এবারের লিগে বঙ্গবীরের হয়ে শতক হাঁকানো এজাজ উদ্বোধনী জুটিতে দুর্দান্ত সূচনা এনে দেন। জিমখানার বোলারদের ওপর চড়াও হয়ে ব্যাট করে ১ম উইকেট জুটিতে ১০০ রান তোলেন।

 

১৬.৩ অভারে প্রথম সাফল্যের দেখা পায় জিমখানা। বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দলের হয়ে বিশ্বকাপ খেলে ফেরা আরিফুল ইসলাম সায়েমের হাতে ক্যাচে পরিণত করে এজাজকে সাজঘরে ফেরত পাঠান।

 

১০০/১ থেকে বঙ্গবীরের স্কোর ৩৫.৫ অভারে গিয়ে দাঁড়ায় ১৫৬/৬! স্বাচ্ছন্দ্যে ব্যাট করতে থাকা তান্না, ইনফর্ম জাভেদ, অভিজ্ঞ অলক কাপালি এবং তাজিনকে প্যাভিলিয়নে পাঠিয়ে দিয়ে জিমখানার গালিব বঙ্গবীরকে খানিকটা ব্যাকফুটে ঠেলে দেন।

 

বঙ্গবীরের বহিরাগত কোটায় খেলা জাহিদুজ্জামান এবং মাহবুব হাসান ৭ম উইকেটে ৩৮ রান তুলে ইনিংসকে অনেকখানি স্থিতিশীল করেন। মাহবুব আউট হলেও এক প্রান্তে জাহিদুজ্জামান সাবলীল ব্যাটিং করে যাচ্ছিলেন। তবে দলীয় ২১১ রানের মাথায় তিনি রানআউট হলে কিছুটা চাপে পড়ে বঙ্গবীর। ১ উইকেট হাতে নিয়ে তারা কি লড়াই করার জন্যে ভালো পুঁজি সংগ্রহ করতে পারবে কি না সেটাই ছিলো চিন্তা।

আরও পড়ুন  স্বপ্ন ভঙ্গের যন্ত্রণা আছে, আছে হাতভরা প্রাপ্তি

 

তবে, রাহি এবং জয়নুল শেষ উইকেটে মাত্র ১৪ বলে ৩০ রান যোগ করায় শেষ পর্যন্ত ২৪১ রানের চ্যালেঞ্জিং স্কোর গড়ে বঙ্গবীর।

 

২৪২ রান তাড়া করতে নেমে শুরুতেই চাপের মুখে পড়ে জিমখানা ক্লাব। বঙ্গবীরের অলক, মাহবুব, তাজিনের ত্রিমুখি স্পিন আক্রমণে ৩৫ রানেই ৪ উইকেট খুইয়ে বসে জিমখানা। কামরুল এবং আরিফুল ৫ম উইকেটে ৫৩ রান তুলে প্রাথমিকভাবে বিপর্যয় সামাল দেন।

 

বাঁহাতি স্পিনার জাভেদ আরিফুলকে লেগ বিফোরের ফাঁদে ফেলে বঙ্গবীরকে ব্রেক থ্রু এনে দেন। এরপর উইকেটে জমে বসা কামরুলকে বোল্ড, অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ খেলা জিমখানার আরেক রিক্রুট মাহফুজুর রহমানকেও এলবিডাব্লিউ করে সাজঘরে ফেরত পাঠিয়ে ম্যাচের চালকের আসনে নিয়ে আসেন বঙ্গবীরকে।

 

১১৬ রানে ৭ম উইকেট হারিয়ে ম্যাচ থেকে অনেকটা ছিটকে যায় জিমখানা। তবে, ফর্মে থাকা গালিব সাঈদকে সঙ্গী করে ৮ম উইকেটে ৬১ রান তুলে লড়াইয়ে ফিরিয়ে আনেন জিমখানাকে। গালিব এবং সাঈদ বেশ ভালো ব্যাট করে যাচ্ছিলেন। যদিও সাঈদ একবার মাহবুবের হাত ফসকে পড়ে যাওয়া ক্যাচের ফলে নতুন জীবন পেয়েছিলেন।

 

বঙ্গবীরের কপালের ভাঁজ ক্রমশই বাড়ছিলো। সেসময় আবারও দলকে দারুণ এক ব্রেক থ্রু এনে দেন জাভেদ। তার বলে স্লগ সুইপ খেলতে গিয়ে ডিপ মিড উইকেটে তান্নার তালুবন্দি হয়ে সাজঘরে ফেরেন জিমখানার জয়ের আশার অন্যতম প্রদীপ হয়ে ব্যাট করতে থাকা সাঈদ।

আরও পড়ুন  বাংলাদেশ-ভুটান বাণিজ্য চুক্তি সই

 

তাজিনের বলে ডাউন দ্যা উইকেটে এসে খেলতে গিয়ে স্টাম্পড হয়ে এনামুল হক জুনিয়র সাজঘরে ফিরে যাওয়ায় ম্যাচ জয় যেন বঙ্গবীরের হাতের মুঠোয় চলে আসে, বাঁধা হয়ে ছিলেন কেবল গালিব। জয়নুলের বলে উইকেট রক্ষকের জাহিদুজ্জামানের দারুণ এক ক্যাচে পরিণত হয়ে গালিব বিদায় নিলে জিমখানার ইনিংসের পরিসমাপ্তি ঘটে।

 

উত্তেজনার আমেজ ছড়ানো ম্যাচ শেষে বঙ্গবীরের খেলোয়াড়েরা স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলতে ফেলতে মাঠ থেকে বেরিয়েছেন। ব্রাদার্স ইউনিয়নের বিপক্ষে ম্যাচটি জিতলেই এবারের লিগ শিরোপা করায়ত্ত করবে তারকায় ঠাসা এই দলটি।

 

 

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

বঙ্গবীর অগ্রগামী ক্রীড়া চক্র ২৪১ (৪৯.৪ অভার)

তান্না ৬১

জাহিদুজ্জামান ৪৮

এজাজ ৪৭

মাহবুব ২২

রাহি ১৯

 

গালিব ১০-০-৩৮-৪

মাহফুজুর ৯.৪-০-২৭-৩

আরিফুল ১০-১-৫৪-২

 

জিমখানা ক্লাব ১৯৩ (৪১.৫ অভার)

গালিব ৫০

সাঈদ ৩৬

আরিফুল ৩৩

কামরুল ৩১

 

জাভেদ ৯-০-৪৯-৪

তাজিন ৩-০-৬-২

অলক ৯-২-২২-২

জয়নুল ৩.৫ -০-৩৩-১

মাহবুব ১০-১-৩৪-১

 

ফল: বঙ্গবীর অগ্রগামী ক্রীড়া চক্র ৪৮ রানে জয়ী

 

 

 

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।

সর্বশেষ সংবাদ