ইহাকেই বলে বিএনপি

প্রকাশিত: ৩:৪৯ অপরাহ্ণ, মার্চ ২১, ২০২২

ইহাকেই বলে বিএনপি

কবীর আহমদ সোহেল ইহাকেই বলে বিএনপি। নিন্দুকেরা বলেন, Basically Not a Party. আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক সড়ক যোগাযোগ ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন ‘বাংলাদেশ নালিশ পার্টি’। বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের ( বিএনপি’র) কিছু কান্ডকারখানা এসব ‘আখ্যা’র যথার্থতা ফুটিয়ে তুলে।

 

 

সিলেট জেলা বিএনপি’র সম্মেলন  ও কাউন্সিল স্থগিত ও পরবর্তীতে কেন্দ্রিয় নেতৃত্বের কর্মকান্ড প্রমাণ করে বিএনপি লেঁজেগোবরে অবস্থা। সিলেটে জেলা বিএনপি চুড়ান্ত প্রস্তুতি সম্পন্ন করলো। জেলা সদর থেকে উপজেলা এমনকি ইউনিয়ন পর্যায়ে সাঁজ সাঁজ রব। তৃণমূল নেতাকর্মীদের মাঝে আনন্দের হিল্লোল। দীর্ঘদিন পর ভোটের মাধ্যমে নেতা নির্বাচনের মাহেন্দ্রক্ষণ সন্নিকটে। ২১ মার্চ তৃণমূল নীতি নির্ধারকরা তাদের সুচিন্তিত রায়ের মাধ্যমে জেলার নেতৃত্ব নির্বাচন করবেন। পোস্টার,পতাকা, ফেস্টুন, ব্যানার আর ডিজিটাল নিয়ন সাইনে সিলেট যেন এক উৎসবের নগরী। নগরীর আলিয়া মাদরাসা মাঠে সুবিশাল সামিয়ানা, নয়নাভিরাম মঞ্চ তৈরীতে ব্যতিব্যস্ত সম্মেলন বাস্তবায়ন কমিটির দায়িত্বপ্রাপ্তরা। ঠিক তখনি ২০ মার্চ অপরাহ্নে নেতা কর্মীদের মাথায় যেন আকাশ ভেঙ্গে পড়লো। কেন্দ্র থেকে বার্তা এলো ‘সম্মেলন ও কাউন্সিল স্থগিত’। এ যেন সামরিক ফরমান। তৃণমূল নেতাকর্মী গণতন্ত্র চর্চার তীব্র বাসনা পোষণ করলেও পদে পদে হোচট খায় দলীয় নেতৃত্বের কাছে। সেই ‘সামরিক উর্দি’র খোলস থেকে বেরুতে পারছেনা বিএনপি। কচ্ছপের ন্যায় মুখ বের করে মাঝে মাঝে, আবার ভেতরে ঢুকিয়ে ফেলে।

 

 

কেন্দ্রিয় সংগঠন যে কোন কর্মসূচি যেকোন কারণে বাতিল বা স্থগিত করতেই পারে। এটা দোষের কিছু না। তবে স্থানীয় নেতাকর্মীর আবেগ অনুভূতিকে সম্মান-শ্রদ্ধা করা গণতান্ত্রিক নেতৃত্বে অপরিহার্যতা। সেটা বিএনপি’তে নেই, দলের সক্রিয় নেতাকর্মী নি:সঙ্কোচে বলে থাকেন।

 

 

সিলেট জেলা বিএনপি’র সম্মেলন ও কাউন্সিল স্থগিতের কারণ হিসেবে বলা হয়েছে ‘কাউন্সিলরদের তালিকা যথার্থতা’ নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। আজব নেতৃত্বের আজিব প্রশ্ন। আহবায়ক কমিটি দীর্ঘদিন নানা প্রতিকূলতা মোকাবেলা করে উপজেলা পর্যায়ে সম্মেলন ও কাউন্সিল করলো। শাখা সংগঠনের তালিকা কেন্দ্রে পাঠালো। জেলা সম্মেলন ও কাউন্সিলের তারিখ ঘোষণা করলো। নির্বাচনের কমিশন গঠন করলো। কমিশন তফশীল ঘোষণা করলো। সে তফশীল অনযায়ী কার্যক্রম চললো। তখন কাউন্সিলরদের তালিকা নিয়ে প্রশ্ন উঠলো না। প্রশ্ন দেখা দিলো সম্মেলনের আগের দিন?

 

 

এতটুকুই মেনে নেয়ার মত, বলছেন স্থানীয় নেতাকর্মী। কিন্তু কেন্দ্রিয় সংগঠন পরবর্তী যে নির্দেশনা দিয়েছে তা সুস্থ কোন রাজনৈতিক চর্চায় পড়েনা বলছেন তৃণমূলের নেতাকর্মী।

 

দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ ২০ মার্চ দ্বিতীয় সংশোধনী পূর্বক একটি নির্দেশনা পত্র জারি করেন। সুত্র নং- বিএনপি/সাধারণ/৭৭/২০/২০২২। বিএনপি’র সিলেট বিভাগীয় সহ- সাংগঠনিক সম্পাদক কলিশ উদ্দিন আহমদকে উদ্যেশ্য করে এই পত্রে একটি নির্দেশনা জারি করা হয়। সিলেট জেলা বিএনপি’র কাউন্সিল উপলক্ষে কাউন্সিলরদের তালিকার যথার্থতা যাচাইয়ের জন্য ৭ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। এই কমিটি  কাউন্সিলরদের তালিকা যাচাই বাছাই করে আগামী ২৭ মার্চের মধ্যে লিখিত প্রতিবেদন নয়াপল্টনস্থ কেন্দ্রিয় কার্যালয়ে প্র্র্রদান করতে বলা হয়েছে।

 

ক্ষুব্ধ নেতা কর্মীরা বলছেন তা-ও মানা গেল। কিন্তু তদন্ত আর যাচাই বাছাই করবে কারা? কমিটিতে কলিম উদ্দিন মিলনকে প্রধান করে সদস্য করা হয়েছে যথাক্রমে সিলেট মহানগর বিএনপি’র সাবেক সভাপতি নাসিম হোসাইন, মহানগর বিএনপি’র আহবায়ক আব্দুল কাইয়ুম জালালী পংকী, সিলেট জেলা যুবদলের বিতর্কিত আহবায়ক সিদ্দিকুর রহমান পাপলু, মহানগর যুবদলের আহবায়ক নজিবুর রহমান নজীব, সিলেট জেলা স্বেচ্ছা সেবকদলের বিতর্কিত আহবায়ক আব্দুল আহাদ খান জামাল ও মহানগর স্বেচ্ছা সেবক দলের আহবায়ক আব্দুল ওয়াহিদদ সোহেল।

 

মাদার অর্গানাইজেশন ‘বিএনপি’। বিএনপি’র ত্রুটি বিচ্যুতি তদন্ত করবে সহযোগী অঙ্গসংগঠন? ব্যাপারটি বেশ বেমানান। বিএনপি’র গঠণতন্ত্রের সাথে সাংঘর্ষিক। বলছেন,দুই যুগের অধিক সময় বিএনপি’র রাজনীতি করা বিশিষ্টজন।

 

জনমনে প্রশ্ন, বিএনপি কি চায়? কোথায় গিয়ে দাঁড়িয়েছে। উপজেলা পর্যায়ে ১০১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি এই প্রতিকূল সময়ে চাট্রিখানি ব্যাপার না। এখন অনেকেই দায়িত্ব নিতে চায় না। এই অবস্থায় স্থানীয় পর্যায়ে কোন ধরণের অনাকাঙ্খিত ঘটনা ছাড়াই কাউন্সিল সম্পন্ন করেই তালিকা হয়েছে। এটাকে অজুহাত ধরে জেলা সম্মেলন স্থগিত।  কেন্দ্রিয় নেতৃত্ব স্থানীয় পর্যায়ে সুযোগ্য নেতৃত্ব আসুক, এটা কি আদ্যৗ চায়। আদর্শিক নেতাকর্মীর বুকফাটা প্রশ্ন। এরা না পারছে বলতে, না পারছে সইতে, এমনকি পারছে না ছাড়তে। এই অবস্থায় বিএনপি। সিলেট বিএনপি ‘আন্ডার ডন’- এর কবলমুক্ত কি হবে? তৃণমূল জাতীয়তাবাদী আদর্শের সৈনিকদের এমন হাজারো প্রশ্নে পর নিজেই উত্তর দেয়, এর নাম বিএনপি। ইহাকেই বলে বিএনপি।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

সর্বশেষ সংবাদ