তাবিথের বিরুদ্ধে করা রিট খারিজ

প্রকাশিত: ৬:৩৩ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২৭, ২০২০

তাবিথের বিরুদ্ধে করা রিট খারিজ

 

প্রভাতবেলা ডেস্ক:

 

হলফনামায় তথ্য গোপনের অভিযোগে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র প্রার্থী তাবিথ আউয়ালের প্রার্থিতা বাতিলের জন্য আবেদন করা রিটটি খারিজ করে দিয়েছেন আদালত।

 

 

সোমবার (২৭ জানুয়ারি) বিচারপতি মো. খায়রুল আলম ও বিচারপতি জে বি এম হাসানের হাইকোর্ট বেঞ্চ রিট শুনানির পর এ আদেশ দেন। সাবেক বিচারপতি এ এইচ এম শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক রিটটি করেছিলেন। তিনি এ নিয়ে আপিল বিভাগে যাবেন বলেও জানিয়েছেন।

 

 

কামরুল হক সিদ্দিকী শুনানিতে রিট আবেদনের পক্ষে ছিলেন। রোকন উদ্দিন মাহমুদ ও খায়রুল আলম চৌধুরী তাবিথের পক্ষে ছিলেন।

 

 

আদেশে আদালত বলেন, রিট আবেদনে তাবিথ আউয়ালের সিঙ্গাপুরে ব্যবসা সংক্রান্ত যে কাগজপত্র জমা হয়েছে, তাতে সিঙ্গাপুরে তার ব্যবসার একটা সংশ্লিষ্টতা দেখা যাচ্ছে। কিন্তু যে কাগজপত্র রিট আবেদনকারী দাখিল করেছেন, সে কাগজপত্র সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ কর্তৃক প্রত্যায়িত নয়। এছাড়া নির্বাচনের মাত্র চার দিন বাকি রয়েছে। এ অল্প সময়ে এসব কাগজপত্র যাচাই-বাছাই করে বিষয়টির সুরাহা করা সম্ভব না। কোনো পক্ষ আগ্রহী থাকলে নির্বাচনের পরেও এ নিয়ে প্রশ্ন তুলতে পারেন। এটি উভয় পক্ষের জন্যই ভালো হবে। অতএব আবেদনটি খারিজ করা হলো।

 

 

রবিবার (২৬ জানুয়ারি) বিএনপির মেয়র প্রার্থী তাবিথ আউয়ালের প্রার্থিতা বাতিল চেয়ে হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় এ রিট আবেদন করা হয়। এতে প্রধান নির্বাচন কমিশনার, তাবিথ আউয়াল, স্থানীয় সরকার সচিবসহ সংশ্লিষ্টদের বিবাদী করা হয়।

 

 

বিচারপতি মানিক জানান, সিঙ্গাপুরে এনএফএম এনার্জি (সিঙ্গাপুর) প্রাইভেট কোম্পানি লিমিটেড নামে একটি কোম্পানিতে তিনজনের শেয়ার রয়েছে। এই তিনজন শেয়ারহোল্ডারের একজন তাবিথ আউয়াল। অন্য দুজন তার সহযোগী। তাবিথসহ তিনজন মিলে এ কোম্পানির সব শেয়ারের মালিক হয়েছেন। এ কোম্পানির মূল্য দেখানো হয়েছে ২ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের বেশি।

 

 

তিনি আরও জানান, এনএফএম এনার্জি (সিঙ্গাপুর) প্রাইভেট কোম্পানির কথা তাবিথ আউয়াল তার হলফনামায় উল্লেখ করেননি। আইন অনুযায়ী নির্বাচনে অংশগ্রহণকারী ও তার পরিবারের সব সদস্যের সব সম্পদ হলফনামায় দেখাতে হবে। কিন্তু তাবিথ আউয়াল তা দেখাননি।

 

 

গত ২৩শে জানুয়ারি বিকালে নির্বাচন কমিশনার মো. রফিকুল ইসলামের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে তাবিথের প্রার্থিতা বাতিলের দাবি জানান শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক।

 

 

প্রভাতবেলা/এমএ

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  • 5
    Shares

সর্বশেষ সংবাদ