২৮ অক্টোবর শাপলা চত্বরে মহাসমাবেশ করবে জামায়াত

প্রকাশিত: ১০:০৯ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৩, ২০২৩

২৮ অক্টোবর শাপলা চত্বরে মহাসমাবেশ করবে জামায়াত
আগামী ২৮ অক্টোবর রাজধানীর মতিঝিলের শাপলা চত্বরে মহাসমাবেশ করার ঘোষণা দিয়েছে জামায়াতে ইসলামী। সোমবার বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদের এক সভায় এই কর্মসূচির ঘোষণা করা হয়।

 

 

জামায়াতের ভারপ্রাপ্ত আমীর অধ্যাপক মুজিবুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় এ সিদ্ধান্ত হয়। এই সিদ্ধান্তের পর বিকালে ঢাকা মহানগর মেট্রোপলিটন পুলিশে (ডিএমপি) আবেদনও করেছে দলটি।

জামায়াতের নির্বাহী পরিষদের সভায় বলা হয়, বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী একটি গণতান্ত্রিক ও নিয়মতান্ত্রিক দল হিসেবে আমীরে জামায়াত ডা. শফিকুর রহমানসহ সকল রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের মুক্তি, মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার এবং কেয়ারটেকার সরকারের দাবি মেনে নিয়ে একটি অবাধ, সুষ্ঠু, অংশগ্রহণমূলক ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য বারবার আহ্বান জানিয়েছে। কিন্তু সরকার তা অগ্রাহ্য করে অব্যাহতভাবে গণগ্রেফতার চালিয়ে আসছে। এই পরিস্থিতিতে গোটা জাতি আজ এক দফার দাবিতে ঐক্যবদ্ধ।

এই অবস্থায় সংসদ ভেঙে দিয়ে পদত্যাগ করে কেয়ারটেকার সরকারের অধীনে জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠানের দাবিতে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদ আগামী ২৮ অক্টোবর রাজধানী ঢাকার মতিঝিলের শাপলা চত্বরে শান্তিপূর্ণ মহাসমাবেশের কর্মসূচি ঘোষণা করছে।

আরও পড়ুন  সাবেক ছাত্রনেতা মিসবাহ চৌধুরীর ইন্তেকালে সিলেট জামায়াতের শোক

এই কর্মসূচি বাস্তবায়নের লক্ষ্যে জামায়াতে ইসলামীর সর্বস্তরের জনশক্তি ও দেশবাসীকে সুশৃঙ্খলভাবে অংশগ্রহণ করার জন্য নির্বাহী পরিষদ আহ্বান জানানো হয়।

কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদের সভায় জামায়াতের ভারপ্রাপ্ত আমীর অধ্যাপক মুজিবুর রহমান বলেন, সরকারের বিরুদ্ধে রাজনৈতিক দলের কোনো নেতা যেন কথা বলতে না পারেন, সেজন্য নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করে মামলা দিয়ে বিরোধী দলকে স্তব্ধ করে দেওয়া হয়েছে। দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিরোধী দলের নেতাকর্মীরা যাতে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে না পারেন, সেজন্য গভীর রাত পর্যন্ত সাক্ষ্য নিয়ে মিথ্যা মামলায় সাজানো দেওয়ার ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, এই সরকার দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে আরেকটি প্রহসনের নির্বাচন অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ক্ষমতা দখলের গভীর ষড়যন্ত্র করছে। ইতোমধ্যে সরকারের বিরুদ্ধে সকল রাজনীতিবিদ, সুশীল সমাজ, বুদ্ধিজীবী, সাংবাদিক, আইনজীবী ও পেশাজীবীসহ সর্বস্তরের মানুষ ঐক্যবদ্ধভাবে কেয়ারটেকার সরকার প্রতিষ্ঠার দাবি জানিয়েছে। কিন্তু সরকার সেদিকে কোনো কর্ণপাত করছে না।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।

সর্বশেষ সংবাদ